হোম কোয়ারান্টিনে ২৫০ মানুষ, পূর্ব কাঁঠালবাড়িতে এক সপ্তাহ লকডাউন

পলাশবাড়ি: আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের পলাশবাড়ি এলাকায় প্রায় আড়াইশো মানুষ হোম কোয়ারান্টিনে রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের পূর্ব কাঁঠালবাড়ি অঞ্চল সভাপতি নিরঞ্জন রায়, উপপ্রধান সৌরভ পাল সহ অন্যান্য নেতা ও ব্যবসায়ীরা।

সম্প্রতি পলাশবাড়ির বাসিন্দা দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার করোনায় আক্রান্ত হন। সূত্রের খনর, এই আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসায় আড়াইশো বাসিন্দাকে হোম কোয়ারান্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। এদিকে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় জেলা পরিষদের শিলবাড়িহাট সহ গোটা পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে এক সপ্তাহের পূর্ণ লকডাউন। সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েত প্রশাসন এই লকডাউনের সিদ্ধান্ত এদিন এলাকায় মাইকের মাধ্যমে প্রচার করে।

- Advertisement -

গত শনিবার শিলিগুড়ির ভক্তিনগর থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত পলাশবাড়ির বাসিন্দা এক পুলিশকর্মী করোনায় আক্রান্ত হন। রিপোর্ট আসার আগেই তিনি ছুটি নিয়ে বাড়িতে এসে এলাকায় ঘোরাফেরা করেন বলে অভিযোগ। এদিকে গত সোমবার রাতে একই এলাকার দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার করোনায় সংক্রমিত হওয়ায় পলাশবাড়ি সহ গোটা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ব্যাপক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা, জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী সহ এলাকার প্রচুর মানুষ দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ারের প্রাথমিক সংস্পর্শে আসেন বলে জানা গিয়েছে। এজন্য গত মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায় শিলবাড়িহাট বাজার। এলাকার প্রায় ১২৬ জনের লালারস সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য দপ্তর। এই রিপোর্ট কবে আসে এখন সেদিকেই তাকিয়ে রয়েছেন পলাশবাড়ির বাসিন্দারা।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে শিলবাড়িহাটে কিছু দোকানপাট খুলে যাওয়ায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। সূত্রের খবর, আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা কিছু ব্যবসায়ী জোর করে এদিন দোকান খোলেন৷ তবে পরে পুলিশ প্রশাসনের নির্দেশে সব দোকানের ঝাপ বন্ধ হয়ে যায়। শিলবাড়িহাট ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক গোবিন্দ বিশ্বাস বলেন, আমি নিজে এক সপ্তাহ থেকে দোকান খুলছি না। তবে এদিন কিছু ব্যবসায়ী প্রথমদিকে দোকান খোলেন। পরে পুলিশ এসে সব দোকান বন্ধ করে দিয়েছে।

এদিকে পরিস্থিতির জেরে এলাকার প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা, জনপ্রতিনিধিরাও হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে বাধ্য হচ্ছেন। তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি নিরঞ্জন রায় বলেন, আমি নিজে লালার নমুনা দিয়েছি। রিপোর্ট এখনও পাইনি। স্বাস্থ্য দপ্তরের নির্দেশে হোম কোয়ারান্টিনে আছি। দলীয় আরও কিছু নেতাকর্মীকে হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। ঘরে বন্দি হয়ে রয়েছেন পূর্ব কাঁঠালবাড়ির উপপ্রধান সৌরভ পালও। তিনি বলেন, আমি নিজে থেকেই হোম কোয়ারান্টিনে আছি। লালার রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত বাড়িতেই থাকব।

এদিকে এই এলাকা থেকে যাঁদের সোয়াব পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়েছে, সেই রিপোর্ট কী আসে তা ভেবেই উদ্বেগ বেড়েছে গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের। এলাকার আরও অনেকের সোয়াব সংগ্রহ করতে চলেছে স্বাস্থ্য দপ্তর। সেই নামের তালিকাও তৈরি হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে এদিন পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষ তড়িঘড়ি এক সপ্তাহ লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে এই লকডাউনের কথা মাইকের মাধ্যমে গোটা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় প্রচার করা হয়। গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান সরোদিনি বর্মন বলেন, শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে আগামী ৬ আগষ্ট রাত ১০টা পর্যন্ত গোটা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় পূর্ণ লকডাউন জারি থাকবে। জরুরি পরিষেবা ছাড়া, হাটবাজার, দোকানপাট সব বন্ধ থাকবে। করোনা পরিস্থিতির জেরে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।