মালদা, ২৩ এপ্রিলঃ দু-একটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ ও নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হল দক্ষিণ মালদার মানিকচক ব্লকের ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়া। মঙ্গলবার সকালে থেকেই উৎসবের আমেজে ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের লম্বা লাইন লক্ষ্য করা যায়। প্রথমে বেশ কয়েকটি বুথে ইভিএম ত্রুটি লক্ষ্য করা গেলেও পরে নির্বাচন কমিশনের তরফে ইভিএম ত্রুটি দূর করা হয়। মানিকচক ব্লক বিডিও সুরজিৎ পন্ডিত জানান, শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। তবে বেশ কিছু বুথে ইভিএম সমস্যা সকালে সামনে এলেও তড়িঘড়ি সেই সমস্ত বুথে ইভিএম বদলে সমস্যা দূর করা হয়। মানিকচকের ব্লকের অন্তর্গত মোট ভোটারের সংখ্যা ১ লক্ষ ৮৭ হাজার। মোট ১৮৭ টি ভোট গ্রহণ কেন্দ্র। যার মধ্যে ভূতনী চরে রয়েছে তিনটি অঞ্চলের ৪৯ টি বুথ। প্রায় ৯০ শতাংশ বুথে মোতায়েন করা হয় কেন্দ্রীয় বাহিনী। মোট ৯ কম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল মানিকচক ব্লকের অন্তর্গত মানিকচক ও ভুতনী এলাকায়। ৩৮ টি বুথে ছিল মাইক্রো অবজারভার, ওয়েব কাস্টিং ব্যবস্থা, সিসিটিভি অথবা ভিডিয়ো ফটোগ্রাফী ব্যবস্থা। মানিকচকের মথুরাপুর ম্যানেজ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭৯ নম্বর বুথে বিজেপির এজেন্টের মদ্যপ অবস্থায় থাকার অভিযোগ ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায়। বিজেপির মদ্যপ এজেন্টকে ঘিরে প্রতিবাদে সরব হয় অন্যান্য রাজনৈতিক দলের এজেন্ট সহ ভোটাররা।  অন্যদিকে, বেশ কিছু বুথে ইভিএম মেশিন বিকল হওয়া ছাড়া উত্তর মালদা লোকসভা কেন্দ্রের গাজোল বিধানসভায়ও ভোট হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবেই। তবে গাজোলের ১২৮ নম্বর বয়েজ প্রাইমারি স্কুলে তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে বচসা এবং পরে হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। যদিও গাজোল থানার ওসি হারাধন দেব বিশাল পুলিশ বাহিনী এবং কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এদিন ইভিএম মেশিন বিকল হয়ে পড়ায় গাজোলের বিভিন্ন বুথে ভোট শুরু হতে প্রায় সাড়ে ৯টা বেজে যায়। বেলা ১২টা পর্যন্ত গাজোলে ভোটের হার ছিল প্রায় ৪১ শতাংশ। পাশাপাশি এদিন রতুয়া-১ এর নরোত্তমপুর কাহালা প্রাইমারি স্কুলের ৬০ নম্বর বুথে ইভিএম বিকল হয়ে পড়ে। তিনবার ইভিএম মেশিন পালটানোর পর বেলা ১২ টা নাগাদ ভোট শুরু হয়। এইনিয়ে ভোটারদের মধ্যেও চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। রতুয়া-১ নম্বর ব্লকের রতুয়া হাই স্কুলের ১০৬ ও ১০৭ দুটি বুথের ইভিএম মেশিন বিকল হয়ে যায়। ১০৬ বুথে নতুন ইভিএম মেশিন লাগিয়ে নির্ধারিত সময়ের ঘন্টা খানেক পর ভোটগ্রহণ চালু হলেও ১০৭ নম্বর বুথে নতুন ইভিএম মেশিন লাগিয়ে নির্ধারিত সময়ের সাড়ে চার ঘণ্টা পর ভোট শুরু হয়।