টোলপ্লাজায় কর্মী নিয়োগে লটারির শরণাপন্ন তৃণমূল

মোস্তাক মোরশেদ হোসেন, রাঙ্গালিবাজনা: মাদারিহাটের রাঙ্গালিবাজনায় ৪৮ নম্বর এশিয়ান হাইওয়ের ওপর চালু হওয়া টোলপ্লাজায় স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে কয়েকজনকে কর্মী হিসেবে নিয়োগ করা হবে। কিন্তু কে পাবে সেই কাজের সুযোগ, তা নিয়েই শুরু হয়েছিল প্রতিযোগিতা। এক একটি পদের জন্য দাবিদার অনেক।

কাজের সুযোগ পেতে বেকার যুবকরা দলে দলে গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য ও শাসক দলের স্থানীয় নেতাদের কাছে অনুনয় বিনয় করতে শুরু করেছিলেন। বাধ্য হয়ে খয়েরবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের বিভিন্ন এলাকা থেকে টোলপ্লাজায় একজন করে যুবক নিয়োগের জন্য লটারি প্রক্রিয়া বেছে নিল তৃণমূল। তবে কয়েকটি এলাকায় গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য ও তৃণমূলের স্থানীয় সদস্যরা মিলে আলোচনা করেই কর্মী মনোনয়ন করেছেন।

- Advertisement -

তৃণমূলের খয়েরবাড়ি অঞ্চল কমিটির সভাপতি জবাইদুল ইসলাম বলেন, টোলপ্লাজায় স্থানীয় কর্মী নিয়োগ করার দাবিতে আন্দোলন করার পর খয়েরবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ১১ জনকে টোলপ্লাজায় নিয়োগ করার কথা ঘোষণা করে বরাতপ্রাপ্ত সংস্থাটি। এদের মধ্যে টোলপ্লাজার একেবারে কাছের বাসিন্দাদের মধ্যে চারজনকে নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বাকি ৭ জনকে সাতটি এলাকা থেকে বেছে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এলাকার  গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য ও দলীয় কর্মীরা বিষয়টিতে অংশ নেন। দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে একেবারে গরিব পরিবারের যুবকদের বেছে নেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। কিন্তু কয়েকটি এলাকায় কর্মপ্রার্থীর সংখ্যা এতটাই বেশি হয়েছে যে বিতর্ক এড়াতে লটারি প্রক্রিয়ার সাহায্য নিতে হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রবিবার খয়েরবাড়ির ১৪/৭৯ নম্বর পার্টে লটারি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রার্থী বেছে নেওয়া হয়েছে। সেখানে পুরো প্রক্রিয়াটি পরিচালনা করেন তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেলের মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লকের সভাপতি ফজলুল ইসলাম। ১৪/৮০ নম্বর পার্টেও লটারির সাহায্য নেওয়া হয়। লটারি হতে পারে ছেকামারি এলাকাতেও। ফজলুল ইসলাম বলেন, এলাকায় প্রচুর বেকার যুবক রয়েছে। তাই প্রার্থী মনোনয়নে লটারির সাহায্য নেওয়া হয়েছে।