খবরের জেরে করোনায় সংক্রামিত গ্রামীণ চিকিৎসকের ঠাঁই সেফ হোমে

425

রাঙ্গালিবাজনা: খবরের জেরে করোনায় সংক্রামিত গ্রামীণ চিকিৎসকের ঠাঁই হল সেফ হোমে। আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাটের খয়েরবাড়িতে করোনায় সংক্রামিত ওই চিকিৎসকের দোকান খুলে ওষুধপত্র বিক্রির খবর উত্তরবঙ্গ সংবাদে প্রকাশিত হওয়ার পর তাঁকে মাদারিহাটের সেফ হোমে নিয়ে গেল স্বাস্থ্য দপ্তর। আলিপুরদুয়ারের জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশচন্দ্র বেরা বলেন, ‘সংবাদপত্রে খবরটি দেখা মাত্রই তাঁকে সেফ হোমে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রবিবার স্বাস্থ্যকর্মীরা তাঁকে মাদারিহাটের সেফ হোমে নিয়ে গিয়েছেন।’

এদিকে, সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে ওই যুবক দোকান না খুললেও এলাকায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে চিকিৎসা পরিষেবা দিচ্ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এমনকি, রবিবার যখন স্বাস্থ্যকর্মীরা তাঁকে আনতে তাঁর দোকানে যান তখন তিনি ওষুধ বিক্রি করে মোটরবাইক নিয়ে বাইরে গিয়েছিলেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই চিকিৎসক যে করোনায় সংক্রামিত তা এলাকার অনেকেই জানতেন না। স্বাভাবিকভাবেই, তাঁর দোকানে অনেকেই যাচ্ছিলেন ওষুধপত্র আনতে।

- Advertisement -

মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লকের বিভিন্ন এলাকায় অনেকেই জ্বরে ভুগছেন বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু কোভিড টেস্ট করাতে রাজি হচ্ছেন না অনেকেই। মূলত গ্রামীণ চিকিৎসকদের ওপর ভরসা করছেন গ্রামাঞ্চলের মানুষ। এলাকার ওষুধের দোকানগুলিতে প্যারাসিটামলের বিক্রি বহুগুণ বেড়ে গিয়েছে বলে জানান বিক্রেতারা। এদিকে, মাস্ক ব্যবহারে অনীহা দেখা গিয়েছে অনেকের মধ্যেই। হাটে বাজারে ভিড় করা বেশিরভাগ মানুষের মুখেই মাস্ক দেখা যাচ্ছে না।