নকল আধার কার্ড তৈরির অভিযোগ, বিজেপি নেতার বাড়িতে হানা পুলিশের

254

রাঙ্গালিবাজনা: নকল আধার কার্ড তৈরির অভিযোগ। শনিবার আলিপুরদুয়ার জেলার শিশুবাড়িতে বিজেপির এক নেতার বাড়িতে হানা দিল মাদারিহাট থানার পুলিশ। সঞ্জীব দাস নামে বিজেপির রাঙ্গালিবাজনা অঞ্চল প্রমুখ পদের ওই নেতার বাড়ি থেকে এদিন বেশ কিছু কাগজপত্র ও ৬টি বাইক বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে খবর।

পুলিশ জানায়, এলাকায় নকল আধার কার্ড তৈরির চক্র কাজ করছে বলে নির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে অভিযান চালানো হয়‌। তবে, কাউকেই ধরতে পারেনি পুলিশ। এই ঘটনায় সঞ্জীব দাসের ভূমিকা সম্পর্কে খোলাখুলি কিছু জানায়নি পুলিশ। তবে সঞ্জীব দাসের জানান, তাঁকে রাজনৈতিকভাবে চক্রান্ত করে ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে।

- Advertisement -

স্থানীয় সূত্রে খবর, এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে নকল আধার কার্ড তৈরির একটি চক্র কাজ করছিল। আধার কার্ড তৈরি করে দেওয়ার নাম করে ৬০০-৭০০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছিল। ওই তথ্য পেয়ে তদন্তে নামে মাদারিহাট থানার পুলিশ। পুলিশের সন্দেহ, নকল আধার কার্ড তৈরির চক্রের সঙ্গে জড়িত বেশ কয়েকজন লোক ওই বাড়িতে এদিন জড়ো হয়েছিল। তবে পুলিশ হানা দিয়েছে টের পেয়েই গা ঢাকা দেয় প্রত্যেকেই। তবে, এদিন ওই বাড়ি থেকে বাইক ছাড়াও বেশ কিছু কাগজপত্র বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে জানান মাদারিহাট থানার ওসি টি এন লামা। তিনি বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। বাইকের মালিকদের খোঁজ চলছে।’

এদিকে, শনিবার বিকেলে ওই এলাকায় পুলিশের অভিযানের পরই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। দলের নেতার বাড়িতে পুলিশের হানায় অস্বস্তিতে পড়েছে বিজেপি নেতৃত্বও। বিজেপির ১৮ নম্বর মণ্ডলের সহ সভাপতি মনোহর লাখোটিয়া বলেন, ‘শুনেছি ওর বাড়িতে কয়েকজন যুবক এসেছিলেন। আমাদের একটি বাইক র‍্যালি রয়েছে। হয়তো তা নিয়েই বৈঠক হচ্ছিল।’ কিন্তু বৈঠক চললে পুলিশ আসতেই তাঁরা গা ঢাকা দিলেন কেন সেই প্রশ্নের জবাবে মনোহরবাবু বলেন, ‘তা বলতে পারব না। তবে কেউ কোনও বেআইনি কাজে জড়িয়ে পড়লে দল পাশে দাঁড়াবে না।’

এদিকে সঞ্জীব দাস বলেন, ‘আমার বাড়িতে দলের মিটিং চলছিল। আমি টিফিন কিনতে গিয়েছিলাম। মিটিংয়ে আমার বন্ধু তথা বীরপাড়ার এক বিজেপিকর্মী ছিলেন। আমার ওই বন্ধুর সঙ্গে কোচবিহার ও তুফানগঞ্জের বাসিন্দা কয়েকজন যুবক এসেছিলেন। তবে আমি তাদের চিনি না। তাদের ব্যাগে কি কাগজপত্র ছিল তাও জানি না। এদিকে পুলিশ ওই যুবকদের বাইক ছাড়াও আমাদের দলের বুথ সভাপতির বাইকও তুলে নিয়ে গিয়েছে। আসলে আমার নেতৃত্বে শিশুবাড়িতে বিজেপির সংগঠন বেড়ে চলায় আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে।’