চোপড়ার বন্ধ চা বাগানে মাফিয়ারাজ কায়েম, উদ্বেগে বাসিন্দারা

তপনকুমার বিশ্বাস, চোপড়া: উত্তর দিনাজপুর জেলার চা বলয় হিসেবে পরিচিত চোপড়া ব্লকের একাধিক চা বাগান বন্ধ রয়েছে। এর ফলে বহু শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। শ্রমিকরা কমিটি করে কিছু বাগানে চালাচ্ছে। কোথাও আবার জমি মাফিয়াদের দখলে চলে যাচ্ছে চা বাগান। কেটে নেওয়া হচ্ছে বাগানের বড়ো বড়ো ছায়া গাছ।

সম্প্রতি ইসলামপুর থানার আগডিমটিখন্তিতে একটি বন্ধ বাগানের জমি দখলকে কেন্দ্র করে জমি মাফিয়াদের হাতে এক শ্রমিক খুন হন। লকডাউনের মধ্যেই ফের বন্ধ চা বাগানের দখল নিয়ে চলে গুলির লড়াই। ফলে চোপড়ার বন্ধ বাগানগুলিতেও এমন ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এনিয়ে প্রশাসনের সদর্থক পদক্ষেপের দাবি উঠেছে বিভিন্ন মহল থেকে।

- Advertisement -

ইসলামপুর মহকুমার অ্যাসিস্ট্যান্ট লেবার কমিশনার শেখ নৌশাদ আলি বলেন, বন্ধ বাগানগুলির মালিকপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হচ্ছে। শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় আইনত ব্যবস্থা যা যা নেওয়া সম্ভব, তা করা হচ্ছে। কোথাও গণ্ডগোল কিংবা জমি দখল হলে তা পুলিস-প্রশাসন জানানো হচ্ছে। আইন শৃঙ্খলার অবনতি হলে আমরা পুলিশ প্রশাসনকে জানাই।

স্থানীয় ও প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, চোপড়া বরাবরই উত্তেজনাপ্রবণ। সামান্য কারণে গুলি, বোমা নিয়ে সংঘর্ষ লেগে যায়। চা বাগানগুলিতেও কর্তৃত্ব স্থাপন নিয়ে এখানে নিয়মিত মারামারি ও হানাহানি হয়। যে যার মতো করে পেশি শক্তি ব্যবহার করে। এখন বন্ধ বাগানগুলি নিয়ে এলাকায় উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে মাফিয়াদের ছত্রছায়ায় শার্প শুটাররা। এতে এলাকার বাসিন্দারা ভীত সন্ত্রস্ত। তাঁরা বলেন, প্রশাসন এখন থেকেই সদর্থক পদক্ষেপ না করলে আগডিমটির মতো ঘটনা চোপড়াতেও ঘটতে  পারে।

আইএনটিইউসি অনুমোদিত ন্যাশনাল ইউনিয়ন অব প্লান্টেশন ওয়ার্কাসের সাধারণ সম্পাদক তথা চোপড়া ব্লক কংগ্রেস সভাপতি অশোক রায় বলেন, “শ্রমিকদের স্বার্থে আমরা আছি। শ্রমিকদের সমস্যা মেটাতে মালিক পক্ষের সঙ্গে অনেক বার বৈঠক হয়েছে। এলাকায় জমি মাফিয়া তৈরি হয়েছে। তারা বিভিন্ন বন্ধ বাগানের জমির দখল নিচ্ছে। গাছ কেটে নিচ্ছে। রাজ্যের শাসক দল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের মদতে বন্ধ চা বাগানে অরাজকতা চলছে।

সিটু অনুমোদিত ওয়েস্ট দিনাজপুর চা বাগিচা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক স্বপন গুহনিয়োগী বলেন, চোপড়ায় বন্ধ বাগানের একটি-দু’টি ইউনিটে শ্রমিকেরা পাতা তুলছে। কিন্তু বাকি বন্ধ বাগানগুলি মাফিয়ারা দখল নিতে চেষ্টা করছে। যে কোনও মুহূর্তে গণ্ডগোল হতে পারে। বন্ধ বাগানে বহু গাছ কেটে নেওয়া হচ্ছে।

উত্তর দিনাজপুর চা বাগান তৃণমূল কংগ্রেস মজদুর ইউনিয়নের কার্যকরী সভাপতি প্রেমকমল রায়চৌধুরি বলেন, কাজ হারানো শ্রমিকদের ১০০ দিনের কাজে যুক্ত করা হচ্ছে। জমি মাফিয়া নেই। জমি দখলও হয়নি কোথাও। তবে দুষ্কৃতীরা কিছু বাগানে গাছ কেটেছে। প্রশাসন তা দেখছে।

ইসলামপুর পুলিস জেলার সুপার সচিন মক্কর বলেন, বন্ধ চা বাগানগুলি কী অবস্থায় রয়েছে তা দেখার জন্য শ্রম দপ্তর রয়েছে। তবে কোথাও আইন শৃঙ্খলার অবনতি হলে তা শক্ত হাতে মোকাবিলা করা হবে।