শিলিগুড়ি, ২৭ ফেব্রুয়ারিঃ মাটিগাড়া থানায় পুলিশ হেপাজতে বন্দিমৃত্যুর ঘটনায় ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্ত শুরু হল। বৃহস্পতিবার সকালে মহকুমাশাসকের দপ্তর থেকে ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের এক আধিকারিক মাটিগাড়া গ্রামীণ হাসপাতালে যান। তিনি মৃতের পরিবারের কাছে ময়নাতদন্তের জন্য দেহ ছাড়ার জন্য আবেদন জানান। যদিও মৃতের পরিবারের লোকজন ময়নাতদন্তের জন্য কোনও কাগজে সই করতে রাজি হয়নি। ফলে এখনও মৃতদেহ ময়নাতদন্তে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি। মৃতের পরিবারের সদস্যদের বোঝানোর চেষ্টা করছেন পুলিশ আধিকারিকরা। এদিনও মাটিগাড়া থানা এলাকায় প্রচুর লোকজন জমা হয়েছেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বুধবার সকালে খোলাইবকতরির ঠোক্কর এলাকায় মদবিরোধী অভিযান চালায় মাটিগাড়া থানার পুলিশ মদ বিক্রির অভিযোগে বেচন রায় (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। ওই ব্যক্তির পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, বেচনকে ছাড়ানোর জন্য পুলিশ ২০ হাজার টাকা দাবি করে। তাঁরা টাকা জোগাড় করে ফেলেছিলেন। সন্ধ্যাবেলায় বেচনের পরিবারকে থানা থেকে বলা হয়, তিনি গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি। হাসপাতালে বেচনের পরিবারের সদস্যরা দেখেন, তিনি মারা গিয়েছেন। পরিবারের অভিযোগ, লকআপে পুলিশের মারে বেচনের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার পর মাটিগাড়া থানায় বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে মৃতের পরিবার ও স্থানীয়রা। একসময় পুলিশ ও জনতার মধ্যে হাতাহাতিও শুরু হয়। বিভিন্ন থানা থেকে পুলিশ গিয়ে গভীর রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।