মহাত্মা গান্ধির মৃত্যুবার্ষিকীতে অহিংস পথে আন্দোলনের ডাক, অনশনে বসলেন কৃষকরা

91

নয়াদিল্লি: মহাত্মা গান্ধির ৭৩তম মৃত্যুদিবসে দিনভর অনশনে থেকে ‘সদভাবনা দিবস’ পালন করবেন দিল্লি সীমানায় আন্দোলনরত কৃষকরা। গান্ধিজির অহিংস পথে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকেই হাতিয়ার করেছে কৃষক নেতারা।

শনিবার সকাল ৯টা থেকে অনশন শুরু হয়ে চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। নতুন তিন কৃষি আইন পাশের পর থেকে শুরু হওয়া আন্দোলনের ধরন যে শান্তিপূর্ণ ছিল তা বোঝাতেই এই অনশন বলে দাবি করেছেন কৃষক নেতারা। জানা গিয়েছে, হরিয়ানা ও পঞ্জাব থেকে আরও কৃষক আন্দোলনে যোগ দেবেন। ক্রান্তিকারি কিষান ইউনিয়নের নেতা দর্শন পাল বলেন, ‘আমরা শান্তির পক্ষেই ছিলাম, আজও তাই আছি, আগামী দিনেও থাকব।’ পাশাপাশি শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদে যোগ দিতে দেশের মানুষকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, ট্র্যাক্টর র‍্যালি ঘিরে প্রজাতন্ত্র দিবসে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় দিল্লি। পুলিশ-কৃষক সংঘর্ষে ধুন্ধুমার কাণ্ড বাধে। দিল্লির সিংঘু সীমানায় পুলিশের ব্যারিকেড ভাঙার অভিযোগ ওঠে বিক্ষোভরত কৃষকদের বিরুদ্ধে। পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে পালটা লাঠিচার্জ করে পুলিশ। কাঁদানে গ্যাসের শেলও ফাটানো হয়। আহত হন ৩০০-এরও বেশি পুলিশকর্মী। বিক্ষোভের সময় ট্র্যাক্টর উলটে এক কৃষকের মৃত্যু হয়। পুলিশি ব্যারিকেড ভেঙে লালকেল্লার মাথায় উঠে নিজেদের পতাকা টাঙিয়ে দেওয়া নিয়ে বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ফরেন্সিক টিম ও বম্ব স্কোয়াড। লালকেল্লার চারপাশে আইটিও ও অন্যান্য জায়গার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিতকরার কাজ চলছে। ইতিমধ্যেই ২০০ জনকে আটক করেছে দিল্লি পুলিশ। তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে বলে দিল্লি পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে। এদিকে গাজিপুর সীমানায় আন্দোলনে বসেছেন ভারতীয় কিষান ইউনিয়নের নেতা রাকেশ তিকাইত। তাঁর চোখের জলে ভেস্তে যাওয়া আন্দোলন ফিরে পেয়েছে নতুন উদ্যম। শুক্রবার মুজফ্ফরপুরে ‘কিসান মহাপঞ্চায়েত’ বসেছিল। সেখান থেকে বহু কৃষক এদিন গাজিপুরের উদ্দেশে রওনা দেবেন।