জলপাইগুড়ি, ২১ অগাস্টঃ জলপাইগুড়ি পানশালা কাণ্ডে গ্রেফতার মামলার মূল অভিযুক্ত ধরম পাসোয়ান। বুধবার ভোরে কলকাতা থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনার পর প্রায় এক মাসের বেশি সময় ধরে ফেরার ছিলেন তিনি। ঘটনায় এক মহিলা সহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ জুলাই জলপাইগুড়ি থানা মোড় এলাকায় ধরম পাসোয়ান নামে ওই ব্যক্তির পানশালায় পুলিশ অভিযান চালায়।  সেখান থেকে ১৩ জন মহিলাকে উদ্ধার করা হয়। জানা গিয়েছে, তাঁরা ওই পানশালার গায়িকা। এছাড়া হোটেল কর্মী সহ মোট ২৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে ২৮ জন জামিনে ছাড়া পায়। সেখানে মানব পাচার করা হত বলে অভিযোগ ওঠে। এই ঘটনায় পরে আরও ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়। জানা গিয়েছে, ঘটনার বেশ কিছুদিন ধরম পাসোয়ান রাজ্যের বাইরে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি কলকাতায় তার ফ্ল্যাটে গিয়েছিলেন। শারীরিক অসুস্থতার জন্য গত কয়েকদিন ধরে কলকাতার ফ্ল্যাটেই ছিলেন তিনি। কলকাতার ফ্লাটে ধরম আছে বলে খবর পায় জলপাইগুড়ি পুলিশ। এরপরই জলপাইগুড়ি পুলিশের একটি দল কলকাতায় যায়। সেখানে ধরমের ওপর নজরদারি চালাতে শুরু করে পুলিশ। কলকাতায় যে গাড়িটি ভাড়া নিয়ে সে ঘোরাফেরা করত সেই গাড়ির চালকের সূত্র ধরেই এদিন ভোরে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এদিন দুপুরে মধ্যে ধরমকে জলপাইগুড়ি আদালতে পেশ করার কথা রয়েছে। অপরদিকে, এদিন সকালে ধরম পাসোয়ানের দুই নম্বর ঘুমটির যে বাড়িটি পুলিশ সিল করে দিয়েছে সেখানে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় দমকলের দুটি ইঞ্জিন। পুলিশের উপস্থিতিতে দমকল কর্মীরা ওই বাড়ির সিল ভেঙে ভেতরে ঢুকে আগুন নেভান। জানা গিয়েছে, ওই বাড়িটিতে থাকতেন ধরম পাসোয়ানের পানশালার গায়িকারা। প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগেছিল। ঘটনার তদন্ত চলছে।