মাইথন-পাঞ্চেত ও দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়াল ডিভিসি

159

আসানসোল: বুধবার থেকে আসানসোল শিল্পাঞ্চলজুড়ে শুরু হয়েছে তুমুল বৃষ্টি। ফলে মাইথন, পাঞ্চেত বাঁধ ও দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়াল ডিভিসি। এদিকে জল ছাড়ায় প্লাবনের আশঙ্কা করা হচ্ছে এলাকায়।

ডিভিসি সূত্রে জানা গিয়েছে, মাইথন ও পাঞ্চেত সংলগ্ন এলাকায় গত ২৪ ঘন্টায় ১৬০ থেকে ২০০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। ফলে জলস্তর বিপদসীমার দিকে এগোতে থাকায় বৃহস্পতিবার মাইথন ও পাঞ্চেত থেকে ৩২ হাজার কিউসেক করে জল ছাড়া হচ্ছিল। কিন্তু প্রতি ঘন্টায় এক ফুট করে জল জমতে থাকায় ডিভিসি কর্তৃপক্ষকে বাধ্য হয়ে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়াতে হয়। জানা গিয়েছে, দুপুরের পর থেকে ১ লক্ষ কিউসেক করে জল ছাড়া শুরু করে ডিভিসি। বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত মাইথনে জলস্তর পৌঁছেছে ৪৮৫.৫ ফুটে। মাইথনে জল ধরে রাখার সর্বোচ্চ সীমা ৪৯৫ ফুট। অন্যদিকে, পাঞ্চেতের জলস্তর পৌঁছেছে ৪২৩ ফুটে। জলধারনের সর্বোচ্চ সীমা ৪৩৫ ফুট। এর বেশি জল ধরে রাখতে গেলে আশপাশের জমি জলমগ্ন হতে পারে বলে ডিভিসি সূত্রে জানানো হয়েছে। এদিন মাইথনের ৫টি ও পাঞ্চেতের ৬টি গেট খোলা হয়।

- Advertisement -

অন্যদিকে, মাইথন ও পাঞ্চেত থেকে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়ায় দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকেও জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়াতে হয় ডিভিসিকে। শেষ খবর অনুযায়ী, দুর্গাপুর থেকে ২ লক্ষ ২২ হাজার কিউসেক জল ছাড়া হবে। দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়ায় দামোদরের নিম্ন অববাহিকায় থাকা পূর্ব বর্ধমান, হুগলি ও হাওড়া এলাকায় প্লাবনের আশঙ্কা রয়েছে। ডিভিসির চিফ ইঞ্জিনিয়ার সত্যব্রত বন্দোপাধ্যায় জানিয়েছেন, রাজ্য সরকারের সঙ্গে কথা বলে সেন্ট্রাল ওয়াটার কমিশনের নির্দেশমতো জল ছাড়া শুরু হয়েছে। ঝাড়খণ্ডের দিকে বৃষ্টি হচ্ছে। এই এলাকায় বৃষ্টির পরিমাণ বাড়লে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়াতে হবে।