গাজোলে মকর সংক্রান্তির পুণ্যস্নান

150

গাজোল: নিয়ম মেনে বৃহস্পতিবার ভোর থেকেই গাজোলের আহোড়া এলাকায় পাঁচ কালীমন্দির সংলগ্ন শ্রীমতি নদীতে শুরু হল মকর সংক্রান্তির পুণ্যস্নান। এদিন কয়েক হাজার মানুষ সেখানে স্নান সেরেছেন। শুধু সংশ্লিষ্ট এলাকার নয়, মালদা এবং ভিন জেলা থেকেও প্রচুর পুণ্যার্থী পুণ্যস্নানে শামিল হন। বিভিন্ন জায়গা থেকে সাধুও এখানে আসেন। নদী তীরবর্তী এলাকায় বিভিন্ন মূর্তির মাধ্যমে পৌরাণিক বিষয়গুলিকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এছাড়াও মকর সংক্রান্তি উপলক্ষ্যে শুরু হয়েছে পাঁচদিন ব্যাপী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে পরিবেশিত হবে বাউল, লোকগান এবং কীর্তন।

গাজোল ব্লকের আহোড়া এলাকার প্রসিদ্ধ পাঁচ কালীমন্দির। এখনো এখানে রয়েছে যোগ সিদ্ধ পাঁচটি বহু পুরাতন প্রস্তর খণ্ড। এককালে বহু সাধক এখানে সাধনা করতেন। মন্দিরের পাশ দিয়ে বয়ে গিয়েছে শ্রীমতি নদী। বর্তমান উৎসব কমিটির সভাপতি রমণী রায়, সম্পাদক সুকুমার ভক্ত জানান, তাঁরা বাপ ঠাকুরদার মুখ থেকে শুনে আসছেনছি এই মন্দির প্রায় ৫০০ বছরের পুরানো। সেই সময় থেকে মূলত জেলেরা এখানে পুজো করতেন। এরপর লোকমুখে এখানকার স্থান মাহাত্ম্য ছড়িয়ে পড়ে। বহু সাধু এখানে এসেছেন। একসময় গঙ্গাস্নান প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু প্রায় ১৬ বছর ধরে তাঁরা আবার নতুন করে এখানে মকর সংক্রান্তির গঙ্গাস্নান শুরু করেছেন। এই সময় সাধারণভাবে নদীতে জল কম থাকে। স্নানের সুবিধার জন্য তাঁরা বেশকিছু এলাকা খনন করে আরও চওড়া এবং গভীর করে জল ধরে রাখার ব্যবস্থা করেন। সেখানে মানুষ স্নান করেন। পাশাপাশি তাঁরা জানান, এদিন ভোর থেকেই সংশ্লিষ্ট এলাকা সহ বিভিন্ন জেলার কয়েক হাজার মানুষ এখানে স্নান করতে এসেছেন। দূরদূরান্ত থেকে যাঁরা এসেছেন তাঁদের জন্য খিচুড়ি প্রসাদের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়াও মকর সংক্রান্তির পুণ্যস্নান উপলক্ষ্যে এলাকায় পাঁচদিন ব্যাপী নানা ধরণের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে, যেখানে পরিবেশিত হবে বাউল, লোকগান এবং কীর্তন। মকর সংক্রান্তির পুণ্যস্নানকে ঘিরে গোটা এলাকায় তৈরি হয়েছে উৎসবের আমেজ।

- Advertisement -