২ কোটি ছাত্রীর স্কুলে যাওয়া বন্ধ হতে পারে, আশঙ্কা মালালার

867

রাষ্ট্রসংঘ: করোনা মহামারির জেরে শিক্ষা তহবিলে টান পড়ায় দু’কোটিরও বেশি ছাত্রীর সামনে স্কুলের দরজা চিরদিনের মতো বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন নোবেলজয়ী মালালা ইউসুফজাই। তাঁর ভয়, করোনা ঝড় একদিন থেমে যাবে ঠিকই, কিন্তু ওই ছাত্রীদের স্কুলে ফেরার সম্ভাবনা আর নাও থাকতে পারে।

শুক্রবার রাষ্ট্রসংঘের এক অনুষ্ঠানে মালালা বলেন, ‘কোভিড-১৯ আমাদের সম্মিলিত লক্ষ্যে ধাক্কা দিয়েছে। যার একটা বড় দিক হল, ছাত্রীদের শিক্ষিত করে তোলার কর্মসূচি। শুধু জীবনহানি নয়, আর্থিক ক্ষেত্রেও বড়সড়ো কোপ বসিয়েছে করোনা। এর জেরে অনেক দেশের অর্থনীতি নুইয়ে পড়েছে। নিঃস্ব হয়ে গিয়েছে বহু মানুষ। নুইয়ে পড়া এই অর্থনীতির জের অনেকদিন থেকে যাবে। আর তার কোপ মেয়েদের শিক্ষার ওপর পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’ এটাই এখন মালালার উদ্বেগের কারণ।

- Advertisement -

মালালা বলেন, ‘ইতিমধ্যে সংকট দেখা দিয়েছে আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলে। যে অর্থ জমা পড়ার কথা আর যা জমা পড়ছে, তার ব্যবধান বাড়ছে। শিক্ষা তহবিলের ব্যবধান ইতিমধ্যে ২০০ মিলিয়ন ডলার বেড়েছে।’

শিক্ষার আলোয় মেয়েদের আলোকিত করার ভাবনা থেকে তালিবানি ফতোয়া অমান্য করে একসময় নিজেকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছিলেন পাকিস্তানের এই তরুণী। সাম্যের লড়াইয়ে নিজেকে শামিল করে যেসব মেয়ে শিক্ষাঙ্গনে প্রবেশ করতে চান, রাষ্ট্রসংঘের সহায়তায় তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছেন মালালা। পাঁচবছর আগে যে লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন, তাতে এখনও পৌঁছোনো যায়নি বলে এমনিতেই আক্ষেপ আছে তাঁর। তার ওপর সব ছারখার করে দিয়েছে করোনা ভাইরাস।

রাষ্ট্রসংঘের রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনার দাপটে শিক্ষাক্ষেত্র প্রায় ছারখার হয়ে গিয়েছে। বিশ্বের ১৯০টি দেশের ১০০ কোটিরও বেশি পড়ুয়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দুর্ভোগে পড়েছে বিশ্বের মোট শিক্ষার্থীর ৯৪ শতাংশ।