মতুয়ারাও নাগরিক, মতুয়াপাড়ায় দাঁড়িয়ে বিজেপিকে তোপ মমতার

219

রাণাঘাট: মতুয়া ইস্যুতে ফের একবার বিজেপিকে শানালেন তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার নদিয়ার রানাঘাটের সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মতুয়ারা আগে থেকেই নাগরিক। তাঁদের আবার নতুন করে নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রয়োজন নেই। এদিন বিজেপির বিরুদ্ধে ভুল বোঝানোর অভিযোগ তুলে ধরেন তিনি। গেরুয়া শিবিরের প্রতি একের পর এক তোপ দেগে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, নির্বাচন এলে মতুয়াদের নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় বিজেপি। ভোট চলে গেলে ভুলে যায়।

সামনেই ২১-শের নির্বাচন। সেক্ষেত্রে নিজেদের আখের গোছাতে মড়িয়া ডান-বাম সমস্ত রাজনৈতিক দলই। এমতবস্থায় মতুয়াদের ভোট টানতে জোর দড়ি টানাটানি শুরু হয়েছে তৃণমূল বিজেপির মধ্যে। কেননা, ১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের মতুয়া ভোটব্যাঙ্কে বড়সড় থাবা বসিয়েছিল গেরুয়া শিবির৷ মতুয়া অধ্যুষিত বিধানসভাকেন্দ্রের সাতটি আসনের মধ্যে ছয়টি আসনেই এগিয়ে ছিল গেরুয়া শিবির৷ সেক্ষেত্রে বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের নজর রয়েছে মতুয়া অধ্যুষিত বিধানসভাকেন্দ্রের সাতটি আসনের দিকে।

- Advertisement -

এদিন রাণাঘাটের সভা থেকে গেরুয়া শিবিরকে তোপ দেগে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মতুয়ারা সবাই নাগরিক তাদের নাগরিকত্ব কেউ কাড়তে পারবে না৷ মতুয়ারা কত সাল থেকে বাংলায় আছেন? কেউ ৫০, কেউ ৫২, কেউ ৭০ সাল থেকে। কেউ কেউ দেশ স্বাধীনের আগে থেকে। তারা তো এমনিই নাগরিক। তুমি আবার কি নাগরিকত্বের মোয়া খাওয়াবে? তিনি আরও বলেন, ‘কে কার নাগরিকত্ব কাড়তে পারে? এত সহজ? বাংলায় এনআরসি করতে দেব না। এনপিআর করতে দেব না। আগেও বলেছি, এখনও বলছি।’ পাশাপাশি, মতুয়াদের আশ্বস্ত করে মুখ্যমন্ত্রীর বলেন, নদিয়ায় ৫ হাজার উদ্বাস্তু পরিবারকে পাট্টা দেওয়া হবে। যে যেখানে থাকে সেখানেই জমি পাট্টা দেওয়ার সিদ্ধান্ত দিয়েছে সরকার৷’

অন্যদিকে, এদিনের সভা থেকে ফের একবার কন্যাশ্রী, যুবশ্রী, রূপশ্রী, সবুজ সাথী, স্বাস্থ্য সাথী সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রকল্পের প্রসঙ্গ তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী।