দিল্লিতে ১৮টি বিরোধী দলের সঙ্গে বৈঠকে আগ্রহী মমতা

207

দীপ্তিমান মুখোপাধ্যায়, কলকাতা : লক্ষ্য ২০২৪ সালের লোকসভা ভোট। আর সেই ভোটের দিকে তাকিয়ে এবার দিল্লিতে ১৮টি বিরোধী দলের নেতা-নেত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসতে চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই মতো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে। ২৬ জুলাই তিনি দিল্লি যাবেন বলে আপাতত সিদ্ধান্ত হয়েছে। সংসদ ভবনেই তিনি বিরোধী দলের নেতা-নেত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। ওই বৈঠকে সর্বভারতীয় কংগ্রেস কমিটির সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধি ও রাহুল গান্ধিরও উপস্থিত থাকার কথা আছে। ইতিমধ্যেই মমতার সঙ্গে সোনিয়ার টেলিফোনে একপ্রস্থ আলোচনা হয়েছে। তবে কংগ্রেস সূত্রে জানা যায়নি সেখানে আদৌ রাহুল বা সোনিয়া থাকবেন কিনা।

বিরোধী দলের বিভিন্ন নেতা-নেত্রীর সঙ্গে কথা বলে এখন থেকেই লোকসভা ভোটের সলতে পাকানো শুরু করতে চাইছেন মমতা। এবার বিজেপি বিরোধী প্রচারে কী কী বিষয় সামনে আনা হবে, বিরোধী মুখ কে হতে পারেন বা অভিন্ন ন্যূনতম কর্মসূচি কী হতে পারে, তা নিয়ে ওই বৈঠকে কথা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। সোমবার থেকেই সংসদে বাদল অধিবেশন শুরু হতে চলেছে। ওই অধিবেশনে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় সরকারের চূড়ান্ত ব্যর্থতা, ভ্যাকসিন বণ্টনে অনিয়ম, রাফাল ইস্যুতে ফ্রান্স সরকারের তদন্ত, মহিলা বিল ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তৃণমূলের সংসদীয় দলকে সরব হওয়ার জন্য তৃণমূলনেত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

- Advertisement -

তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় সরকার যে চূড়ান্ত ব্যর্থ, তা সর্বত্র প্রমাণ হয়ে গিয়েছে। আমরা সংসদে সেই বিষয়টি তুলে ধরব। এছাড়া এখনও পর্যন্ত মাত্র দেশে ৮ শতাংশ মানুষ করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। এই গতিতে ভ্যাকসিন দেওয়া হলে কতদিনে দেশের সব মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হবে, তা নিয়ে সংশয় আছে। আমরা সংসদে এই বিষয় নিয়ে সরব হব। তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকারকে চেপে ধরতে মরিয়া বিরোধীরা। সংসদে প্রতিবাদের পাশাপাশি বাইরেও এখন থেকেই বিজেপি বিরোধী প্রচার জোরদার করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সেইমতো পরিকল্পনা সাজানো হচ্ছে। বিরোধী দলের নেতাদের সঙ্গে কথাবার্তা চালাচ্ছেন ভোটকৌশলী প্রশান্ত কিশোর। তিনি দুবার মহারাষ্ট্রের প্রবীণ এনসিপি নেতা শারদ পাওয়ারের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এরই মধ্যে শারদ পাওয়ারের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘ বৈঠক নিয়ে তৃণমূলে জল্পনা শুরু হয়েছে।

২০২৪ সালের লোকসভা ভোটের দিকে তাকিয়ে খেলা হবে স্লোগানের ওপর হিন্দিতে গানও তৈরি করে ফেলেছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে তা মোবাইলের কলার টিউন হিসেবেও ব্যবহার করা হচ্ছে। ওই গানে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাংলার যুবরাজ আখ্যা দেওয়া হয়েছে। তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, দলের প্রতিটি শাখা সংগঠনের নেতা ও কর্মীদের ওই গানটিকে তাঁদের মোবাইলের কলার টিউন করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তৃণমূলের এক নেতা বলেন, এবারের বিধানসভা ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শার প্রচারে আক্রমণের মূল্য লক্ষ্য ছিলেন অভিষেক। বিজেপির অন্যান্য নেতাও পাল্লা দিয়ে অভিষেকের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলেছিলেন। কিন্তু অভিষেক উত্তর থেকে দক্ষিণ যেভাবে প্রতিটি অভিযোগের জবাব দিয়েছেন ও দলের জয়ের নেপথ্যে দলনেত্রীকে সাহায্য করেছেন, তা দলের সকলেই একবাক্যে স্বীকার করছেন। এজন্য তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে পাশাপাশি অভিষেককেও আগামী লোকসভা ভোটে প্রচারের সামনের সারিতে দল আনতে চাইছে। তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, দিল্লি যাওয়ার আগে অভিষেকের সঙ্গে প্রশান্ত কিশোরেরও কয়েক দফা আলোচনা হয়েছে। বিভিন্ন বিরোধী দলের নেতা-নেত্রীদের মনোভাব কী, অভিষেককে তা পিকে জানিয়েছেন। তারপরই দিল্লি যাওয়ার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মমতা নিয়েছেন। তবে এবার দিল্লি সফরে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গেও দেখা করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন খোদ মমতা। মমতার দিল্লি সফরের আগেই ২১ জুলাই শহিদ সমাবেশের ভার্চুয়াল ভাষণ থেকে মমতা সর্বভারতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপটেই বার্তা দিতে চলেছেন বলে দলীয় সূত্রের খবর।