মালদা, ১৪ মার্চঃ চোর সন্দেহে এক যুবককে বাড়ি থেকে টেনে বের করে পিটিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ উঠল পুরাতন মালদার নারায়ণপুরের এক পরিবারের বিরুদ্ধে। মৃত যুবকের নাম সঞ্জয় আহেরি (৩৭) ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত যুবক ভাবুক গ্রাম পঞ্চায়েতের  নারায়ণপুরের পারাদীঘির বাসিন্দা। পেশায় দিনমজুর। কাজের জন্য মাঝে মাঝেই ভিনরাজ্যে থাকতেন তিনি। চলতি মাসের ৬ তারিখ রাতে গ্রামের বাসিন্দা রমেশ সোরেনের বাড়িতে চুরি হয়। সোনা ও রূপোর গয়না ছাড়াও প্রায় ৪০ হাজার টাকা চুরি যায়। রমেশের পরিবারের সন্দেহ হয় সঞ্জয় ওই চুরির ঘটনায় জড়িত। চুরির ঘটনার দিনই সঞ্জয় আত্মীয় বাড়িতে চলে যাওয়ায় তাদের সন্দেহ আরও দৃঢ় হয়। এমনকি সঞ্জয়ের বাড়ির কাছেই চুরি যাওয়া বাক্সটি খালি অবস্থায় পাওয়া যায় বলে সঞ্জয়কেই তারা চোর সন্দেহ করতে থাকে।  বুধবার বিকেলে সঞ্জয় বাড়ি ফেরেন। অভিযোগ, রমেশ ও তার ছেলে মেয়েরা সঞ্জয়ের বাড়িতে ঢুকে তাকে টেনে বাইরে বের করে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে রড, বাঁশ, লাঠি, হাঁসুয়া দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। মারের জেরে জ্ঞান হারিয়ে লুটিয়ে পড়েন সঞ্জয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাকে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসকরা জানান রাস্তাতেই মৃত্যু হয়েছে তার। রমেশ সোরেন ও তার ছেলেমেয়েদের বিরুদ্ধে মালদা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে সঞ্জয়ের পরিবার। বুধবার রাতেই মূল অভিযুক্ত রমেশ সোরেন (৫৫) ও তার ছেলে নির্মল সোরেনকে পারাদীঘি গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ৩০৪ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।