নয়াদিল্লি, ৩০ জুনঃ মুসলিম মেয়েকে দত্তক নেওয়াই হল ‘অপরাধ’। যার জেরে ১৬ বার ছুরি মারা হল ওই ব্যক্তিকে। ঘটনাটি হায়দরাবাদের।

২০০৭ সালে হায়দরাবাদে বিস্ফোরণে একটি মুসলিম মেয়ে তার বাবা-মাকে হারায়। সেই মেয়েকেই নিজের মেয়ে হিসেবে দত্তক নেন হায়দরাবাদের পাপালাল রবিকান্ত।

ছুরিকাহত ওই ব্যক্তি ওসমানিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল। ঘটনাটি গত ১ জুনের।

জানা গিয়েছে ২০০৭ সালের আগস্ট মাসে হায়দরাবাদের গোকুল চাট সেন্টারের কাছ থেকে সদ্য বাবা-মা হারা শিশুকন্যাকে উদ্ধার করেন রবিকান্ত। বাচ্চাটিকে কেউ ফিরিয়ে নিতে কেউ না আসায় রবিকান্ত এবং তাঁর স্ত্রী জয়শ্রী তাকে বাড়িতে নিয়ে আসে। এরপর থেকে রবিকান্ত ও তাঁর পরিবারকে নানা হেনস্তার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এমনকি হুমকির মুখেও পড়তে হয় বহুবার।

মেয়েটির নাম সানিয়া। সে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। একটি মন্দিরে মূর্তি তৈরির কাজ করেন রবিকান্ত। তাঁর কথায়, তিনি কোনো ধর্মে বিশ্বাস করেন না। এক অনাথ শিশুকে সেসময় নিরাপদ আশ্রয় দেওয়া, বাবা-মায়ের স্নেহ দেওয়াই ছিল তাঁর কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। তাই যেকোনো পরিস্থিতিতেই সানিয়া ফতিমাকে আলাদা হতে দেবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন রবিকান্ত।