মমতার নির্দেশে মণীশ শুক্লাকে খুন করা হয়েছে, অভিযোগ রাজুর

337

বর্ধমান: মণীশ শুক্লা খুনের ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কাঠগড়ায় তুললেন রাজ্য বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। কৃষি বিলের সমর্থনে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পূর্ব বর্ধমানের মেমারির পাল্লারোডে বিজেপির দলীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে ষড়যন্ত্র করে টিটাগড়ের বিজেপি নেতা মণীশ শুক্লাকে খুন করা হয়েছে। এরআগে বিজেপি নেতা অর্জুন সিংকে খুন করার চেষ্টা হয়েছিল। রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন দাবি করেন, বাংলায় এখন গুণ্ডারাজ, জঙ্গলরাজ চলছে। মমতা দিদিই বাংলার বুকে জামতারা গ্যাং চালাচ্ছেন। অন্যদিকে, বিজেপি নেতার এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব।

পাল্লা রোডের সভা থেকে নাম না করে প্রশান্ত কিশোরকেও কাঠগড়ায় তুলেছেন রাজুবাবু। এদিন তিনি বলেন, ‘আগে বাংলায় শুট আউট, কন্ট্রাক্ট কিলিং এইসব ছিল না। এখন বিহার থেকে একজন বাংলায় এসেছেন। তারপর থেকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় বাংলায় বিহারের কালচার চালু হয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার নেতৃত্ব দিচ্ছেন।’ মণীশ শুক্লা খুন হওয়ার পর রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ মন্তব্য করেছিলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে বিহার ও উত্তরপ্রদেশের মত মাফিয়া রাজ চলছে।’

- Advertisement -

দিলীপ ঘোষের এই বক্তব্য সমর্থন করে রাজুবাবু এদিন বলেন, ‘দিলীপদা চিন্তা ভাবনা করে সঠিক কথাই বলেছেন। উত্তরপ্রদেশে এখনও মাফিয়ারা আছে। সেইসব মাফিয়ার বিরুদ্ধে যোগী সরকার যে ব্যবস্থা নিচ্ছে তা সবাই দেখতে পাচ্ছেন। সমাজবাদি পার্টি, কংগ্রেস, বহুজন সমাজবাদি পার্টি উত্তরপ্রদেশে যে মাফিয়া রাজ তৈরি করে গিয়েছিল সেই মাফিয়া রাজের সমাপ্তি এখনও হয়নি। যোগী আদিত্যনাথ মুখ্যমন্ত্রী হয়ে মাফিয়া রাজ খতম করছেন।’

এদিকে, রাজুবাবুর মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করেছেন তৃণমূলের রাজ্যের মুখপাত্র দেবু টুডু। পাল্টা অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘বিজেপি দলটাই দুস্কৃতী-মাফিয়াদের দল। তাই ওরা গণধর্ষণে অভিযুক্তদের আড়াল করতে নির্যাতিতার পরিবারকে পুলিশ ও প্রশাসন দিয়ে গৃহবন্দী করে রাখে। সাংবাদিকদের খুন করতেও ওরা পিছপা হয় না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলায় গণতন্ত্র ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছেন বলেই বিরোধীরা এত গলা ফাটাচ্ছে। বিজেপি যে আসলে বাংলায় উত্তরপ্রদেশের মতো মাফিয়া রাজ কায়েম করতে চাইছে, তা বাংলার প্রতিটি মানুষই বুঝে গিয়েছেন। বিধানসভা ভোটে বাংলার মানুষ এর যোগ্য জবাব দেবে।’