১৩ তৃণমূল নেতার নামে মাওবাদী পোস্টার!

803

রামপুরহাট: স্থানীয় তৃণমূলের কয়েকজন প্রভাবশালী নেতার নাম সহ মাওবাদী লেখা দুর্নীতির পোস্টার ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল বীরভূমে। বুধবার লাল কালিতে লেখা ওই পোস্টার বীরভূমের পাঁড়ুই থানার তিনটি গ্রামে দেখা যায়। পোস্টারে জনগনের টাকা ফেরতের পাশাপাশি প্রচ্ছন্ন খুনের হুমকিও দেওয়া হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পোষ্টার গুলি ছিঁড়ে দেয়। কে বা কারা ওই পোস্টার দিল সে বিষয়ে পুলিশ মুখ বন্ধ রাখলেও পুলিশ সুপার জানান, ঘটনার তদন্ত চলছে।

এদিন পাঁড়ুই থানার গোপালবাগ, চৌমন্ডলপুর ও হাঁসরা গ্রামের দেওয়ালে এমনই পোস্টার লক্ষ্য করা গিয়েছে। সেই পোস্টারে তৃণমূলের ইলামবাজার ব্লক সভাপতি জাফারুল শেখ, সভাপতি ফজলুর রহমান সহ মোট ১৩ জন নেতা-কর্মীর নাম রয়েছে। ওই তালিকায় ব্লক সভাপতি ছাড়াও অঞ্চল এবং বুথ সভাপতিদের নামও রয়েছে। তাদের নামের পাশে লেখা ছিল, ‘জীবন দাও, জগনের টাকা ফেরত দাও’। এই পোস্টার জনসমক্ষে আসতেই গ্রামে আতঙ্ক ছড়াই। গ্রামের কেউ এনিয়ে মুখখুলতে রাজি হননি। ফজলুর রহমানের দাবি, এসব বিজেপির কাজ। ওই এলাকায় বিজেপির কোনও সংগঠন নেই। তারা ওই এলাকা অনেক আগে থেকে অশান্ত করে রেখেছিল। তৃণমূলের সঙ্গে রাজনৈতিক লড়াইয়ে পারছে না বলেই রাতের অন্ধকারে মাওবাদী নামে পোস্টার দিয়ে আতঙ্ক ছড়াতে চায়ছে। আমরা এটা বরদাস্ত করব না”।

- Advertisement -

যদিও অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল। তিনি বলেন, “ওসব তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফল। ওদের নেতারা কাটমানি খেতে অভ্যস্ত। তাদের ভাগবাটোয়ারায় গণ্ডগোলের জেরেই পোস্টার পড়েছে। পোস্টারের সঙ্গে বিজেপির কোন যোগ নেই। বিজেপি হিংসায় বিশ্বাসী নয়। বিজেপি মাঠেঘাটে নেমে লড়াই করতে পারে। তাছাড়া, তৃণমূলই এখন মাওবাদীকে দলের রাজ্য কমিটিতে জায়গা দিয়েছে। ফলে, কারা মাওবাদীর দল তা সকলেই বুঝতে পারছে। যারা কাটমানির টাকা পায়নি তারাই এই পোস্টার দিয়েছে। ওরা সর্বত্র বিজেপির ভূত দেখছে। ওদের সঙ্গে এখন পুলিশ ছাড়া কিছু নেই”।