মনজুর আলম, চোপড়া : চোপড়া ব্লকের ৮টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে শতাধিক মার্ক-২ নলকূপ অকেজো হয়ে রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত এবং ব্লক প্রশাসনের নজরে এনেও কাজ হচ্ছে না বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। গ্রাম পঞ্চায়েতভিত্তিক বিভিন্ন এলাকায় কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিংবা গ্রামে পানীয় জলের সমস্যা মেটাতে মার্ক-২ নলকূপগুলি বসানো হয়েছিল। সরকারিভাবে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে নলকূপ বসানোর পরেও দেখভালের অভাবে তা অকেজো হয়ে পড়ে থাকায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বেশ কিছু এলাকার সমস্যার কথা গ্রাম পঞ্চায়েত বা ব্লক প্রশাসনের নজরে এনেও কাজ হচ্ছে না। এই মুহূর্তে ব্লকে প্রায় শতাধিক মার্ক-২ অকেজো হয়ে পড়েছে। তার মধ্যে বিভিন্ন প্রাইমারি স্কুল, অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র, শিশুশিক্ষাকেন্দ্রে নলকূপ অকেজো থাকায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। চোপড়ার কামারতোর-২ প্রাইমারি স্কুল থেকে গতবছরের ডিসেম্বর মাসে মার্ক-২ নলকূপ মেরামতের জন্য স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হলেও এখনও কাজ হয়নি। এই ব্যপারে চোপড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান করণ মারডি বলেন, এলাকায় এই মুহূর্তে প্রায় ১৫টি মার্ক-২ অকেজো হয়ে পড়েছে। কোথায় কী সমস্যা সেগুলি খতিয়ে দেখা হয়েছে। তবে স্কুল এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলির নলকূপগুলির প্রথমে সংস্কারের কাজ শুরু করা হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সবকয়টি এলাকায় মার্ক-২ মেরামতের পরিকল্পান নেওয়া হচ্ছে। ঘিরনিগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় এই মুহূর্তে ৩০টি মার্ক-২ অকেজো হয়ে পড়েছে বলে জানা গিয়েছে। এলাকার গোয়াবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা সাদ্দাম হুসেন বলেন, গত তিনবছর ধরে গ্রামে মার্ক-২ নলকূপটি অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে। একাধিকবার গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে জানিয়েও কাজ হয়নি।

- Advertisement -

অন্যদিকে লক্ষ্মীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আব্দুল রাজ্জাক বলেন, এলাকায় প্রায় ১০টি নলকূপে সমস্যা দেখা দিয়েছে। এই ব্যাপারে ব্লকস্তরে কয়েকটি অভিযোগও জমা পড়েছে। সমস্যা মেটাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান দুলাল মণ্ডল বলেন, এলাকায় অন্তত ২০টি মার্ক-২ নলকূপের সমস্যা দেখা দিয়েছে। সোনাপুর ও চুটিয়াখোর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেও এধরনের সমস্যার অভিযোগ রয়েছে। মাঝিয়ালি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা তথা পঞ্চায়েত সমিতির খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ আসমাতারা বেগম বলেন, এলাকায় বেশ কয়েকটি নলকূপ নিয়ে সমস্যার অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের নজরে আনা হচ্ছে। অন্যদিকে হাপতিয়াগছ গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান শাকির আহমেদ বলেন, গত মাসে এধরনের ১২টি অভিযোগ জমা পড়েছিল। সব এলাকায় মেরামতের কাজ করা হয়েছে। চোপড়ার বিডিও জুনেইদ আহমেদ বলেন, স্যানিটেশন ও ওয়াটার সাপ্লাইয়ে বিষয়টি গ্রাম পঞ্চায়েত স্তর থেকেই দেখার কথা। এ ব্যাপারে ব্লকস্তরে কেউ অভিযোগ জানালে সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েতের নজরে আনা হয়।