মাস্ক আর দূরত্ববিধিতে ২ লক্ষ প্রাণ বাঁচানো সম্ভব ভারতে

695

নয়াদিল্লি : শুধু মাস্ক পরে আর দূরত্ববিধি মেনে চললেই আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে করোনায় অন্তত ২ লক্ষ মানুষের মৃত্যু ঠেকিয়ে দেওয়া যাবে ভারতে। একটি মার্কিন সমীক্ষায় এই দাবি করা হয়েছে। সমীক্ষাটি করেছেন ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিক্স অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন (আইএইচএমই)-এর গবেষকরা। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগীয় অধ্যক্ষ ক্রিস্টোফার মারে বলেছেন, ভারতে মহামারি শেষ হতে এখনও অনেক সময় লাগবে। এখনও সে দেশের জনসংখ্যার একটা বড় অংশ সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে সুরক্ষা ব্যবস্থা নিশ্ছিদ্র করার ওপরে অনেক কিছু নির্ভর করছে। তাঁর মতে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে কোভিড সংক্রান্ত নিয়মনীতি মেনে চলতে হবে সরকারের পাশাপাশি অবশ্যই আমজনতাকে। মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয়ের মডেলিং স্টাডি ও এই সমীক্ষা প্রসঙ্গে হরিয়ানার অশোক বিশ্ববিদ্যালযে অধ্যাপক গৌতম মেননের বক্তব্য, ওই মডেল অনুযায়ী, ডিসেম্বর মাসের প্রথমার্ধে সংক্রমণের শীর্ষে পৌঁছোবে ভারত। বিনা বাধায় সংক্রমণ ছড়ালে ওই সময়ে দৈনিক ৬০ লক্ষ মানুষ সংক্রামিত হবেন। মৃতের সংখ্যা পাঁচ লক্ষের কাছাকাছি (৪,৯২,৩৮০) চলে যাবে। সবচেযে কম হলেও মৃতের সংখ্যা ২,৯১,১৪৫-এর কাছাকাছি হবে। দেশের অন্তত ১৩টি রাজ্যে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে য়াবে।

মেননের মতে, ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত ভারতে করোনা ভাইরাসকে পুরোপুরি কব্জা করা যাবে না। তাঁর বক্তব্য, যে সমীক্ষাগুলি ডিসেম্বরের অনেক আগেই ভারত সংক্রমণের শীর্ষ ছোঁবে বলে জানিযেছে, সেগুলির তুলনায় ওয়াশিংটনের ওই হিসেব কিছুটা বেশি বলে মনে হচ্ছে। মাস্ক পরা এবং ন্যূনতম দূরত্ববিধি মেনে চলা যে সংক্রমণ আটকানোর অন্যতম প্রধান উপায়, তা নিযে মেননের কোনও সংশয় নেই। দিল্লি সহ বিভিন্ন জায়গায় কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং, নমুনা পরীক্ষা, শনাক্তকরণ ও চিকিৎসার পাশাপাশি মাস্ক পরা ও সামাজিক মেলামেশায় রাশ টানার ফলেই সাফল্য মিলেছে।

- Advertisement -