সেমির আগে ড্যানিশদের হুংকার মাউন্টের

লন্ডন : খেলা হবে।

বঙ্গ রাজনীতি তো বটেই ভারতের বৃহত্তর পরিসরে এখন বড্ড চেনা এই শব্দযুগল।

- Advertisement -

গঙ্গা পেরিয়ে এবার তা এবার টেমস তীরে। ২৫ বছর পর ইউরো কাপের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড। শনিবার কোয়ার্টার ফাইনালে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে চার গোলে জয়ে ছবিটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল সিংহের গুহায় এবার খেলা হবে। শেষ চারে ইংল্যান্ডের সামনে ডেনমার্ক। নিজেদের দুর্গ ওয়েম্বলিতে এবার ফাইনালে ওঠার লড়াই গ্যারেথ সাউথগেটের দলের।

সেটাই বাড়তি আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে ইংল্যান্ড শিবিরকে। সেমিফাইনালে বল গড়ানোর আগে মাঠের বাইরে মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধটাও শুরু করে দিয়েছেন হ্যারি কেনরা। ম্যাসন মাউন্ট যেমন। ইউক্রেন ম্যাচের পর স্পষ্ট জানিয়েছেন, সিংহের গুহায় খেলতে হবে ডেনমার্ককে। চাপ এখনও ওদের ওপর।

প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে সম্মানের লড়াইয়ে জার্মানিকে হারানোর পর থেকেই আত্মবিশ্বাসের ফুটছে ইংল্যান্ড। গোলের ছন্দে ফিরে এসেছেন দলের মুখ হ্যারি কেন। ইউক্রেন ম্যাচে জোড়া গোল এসেছে তাঁর পা থেকে। ওয়েম্বলিতে চেনা পরিবেশে আরও নখদাঁত বের করে ড্যানিশদের ওপরে ঝাঁপাবে থ্রি লায়ন্স, আশায় বুক বাঁধছেন সমর্থকরা।

সেমিফাইনালের আগে ইংল্যান্ড শিবিরের মনোবল বেড়েছে আও একটা সুখবরে। শেষ চারের লড়াই দেখতে ওয়েম্বলির গ্যালারিতে উপস্থিত থাকবেন ৬০,০০০ দর্শক। গ্রুপ পর্যায়ে ম্যাচে যেখানে ওয়েম্বলিতে উপস্থিত ছিল বিশ হাজার দর্শক-সমর্থক। প্রায় চল্লিশ হাজারের বাড়তি উপস্থিতি তাতিয়ে তুলেছে সাউথগেটের ছেলেদের। মাউন্ট বলেছেন, ওয়েম্বলিতে খেলা দারুণ ব্যাপার। জার্মানি ম্যাচের স্মৃতি এখনও আমাদের কাছে টাটকা। ওয়েম্বলিতে আমরা ফাইনাল খেলার লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামব। সমর্থকরাও আমাদের হয়ে গলা ফাটাবেন। ফুটবলের জন্য দুর্ধর্ষ একটা পরিবেশ তৈরি হবে।