আফগান জেলে আইএস হামলা

336

জালালাবাদ: আফগানিস্তানের একটি জেলে আইএস জঙ্গিদের হামলা চলাকালীন পালাল বহু বন্দি। ঘটনায় মৃত তিন, আহত বহু।

আফগানিস্তানের জালালাবাদে সরকারি কারাগারে আক্রমণ চালাল জঙ্গিরা। একের পর এক বিস্ফোরণ। তারই মধ্যে জেল থেকে পালাল বহু তালিবান এবং আইএস জঙ্গি। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। গুরুতর আহত ২৪ জন।

- Advertisement -

রবিবার হ‌‌ঠাৎ জালালাবাদের ওই জেলে আক্রমণ চালায় জঙ্গিরা, প্রথমে জেলের ঠিক বাইরে একটি গাড়িবোমা বিস্ফোরণ হয়, তা নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই জেলের ভিতরে হানা দেয় জঙ্গিরা। প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান অনুযায়ী, জেলের ভিতরে দুইটি ছোট ছোট বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এই আক্রমণে দিশেহারা জেলের দায়িত্বে থাকা পুলিশবাহিনী পদক্ষেপ নেওয়ার ‌‌আগেই গুলিবর্ষণ শুরু করে জঙ্গিরা, মৃত্যু হয় তিনজনের।

কয়েক ঘণ্টা ধরে দুই পক্ষের গুলি বিনিময় হয়, রণক্ষেত্র চেহারা নেয় গোটা এলাকা। এরই সুযোগে জেল থেকে পালান বহু বন্দি। যার মধ্যে বহু তালিবান এবং আইএস জঙ্গি রয়েছে বলে প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে।

মূলত, সহকর্মীদের মুক্তির জন্যই এমন ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে দাবি করেন আইএস জঙ্গিরা। একই সঙ্গে আফগান সরকারকে সতর্কও করা হয়েছে বলে তাদের দাবি।

ইদ উপলক্ষ্যে তালিবান এবং আফগান সরকারের মধ্যে যুদ্ধবিরতির চুক্তি হয়েছিল, তাতেও ইদে সহিংসতা এড়ানো যায়নি, ইদের কয়েকদিন আগে তালিবান অধ্যুষিত এলাকায় এয়ার স্ট্রাইক করেছে আফগান নিরাপত্তা বাহিনী, ঘটনায় আটজন সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এরপর ইদে আগের দিন একটি বাজারে বিস্ফোরণ ঘটে, বাজার করতে আসা বহু মানুষের মৃত্যু হয়। যদিও এখনও পর্যন্ত সেই ঘটনার দায় স্বীকার করেনি কোনও জঙ্গি সংগঠন।

কিছুদিন আগেই তালিবান ঘোষণা করেছিল, ইদের পর আফগান সরকারের সঙ্গে শান্তি চুক্তিতে তারা আগ্রহী। রবিবারের ঘটনার পর তা সম্ভব হবে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। কোনও কোনও বিশেষজ্ঞের বক্তব্য, রবিবারের ঘটনায় তালিবানেরও মদত আছে। কারণ, দীর্ঘদিন ধরেই তারা দাবি করছে, চুক্তিমতো তাদের সমস্ত বন্দিকে মুক্তি দেওয়া হয়নি। গত ফেব্রুয়ারি মাসে আমেরিকা এবং আফগান সরকারের সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল তালিবানের। সেখানে পাঁচ হাজার তালিবানকে মুক্তি দেওয়া হবে বলে ঘোষণা হয়েছিল। কিন্তু এখনও প্রায় পাঁচশো বন্দির মুক্তি হয়নি বলে তালিবানের দাবি। এ দিন জালালাবাদ জেলের ঘটনায় বহু তালিবান বন্দি পালাতে পেরেছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

২০১৯ সালে আফগান সরকার দাবি করেছিল, আফগান ভূখণ্ডে আইএস জঙ্গিদের শক্তি পুরোপুরি শেষ করে দেওয়া হয়েছে। তা হলে কি করে রবিবারের ঘটনা ঘটল? পশ্ন উঠছে। বস্তুত, এদিনের ঘটনার পর আইএস যেভাবে আক্রমণাত্মক বিবৃতি জারি করেছে, তা গোটা এলাকার রাজনৈতিক পরিস্থিতির উপর প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে।