অধরা ফ্লাইওভার, নেতাদের টনক নড়াতে পার্টির সদর দপ্তরে গণ চিঠি গ্রামবাসীদের

207

বর্ধমান: ভোট আসে ভোট যায়। কিন্তু প্রতিশ্রুতি আর পূরণ হয়না। যেমনটা হয়নি পূর্ব বর্ধমানের পালসিট ও পাল্লারোড এলাকায় জাতীয় সড়কের উপর ফ্লাইওভার নির্মাণের দাবি। সেক্ষেত্রে এবার ভোটের দামামা বেজে উঠতেই রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রী থেকে শুরু করে প্রার্থীদের টনক নড়াতে অভিনব পথ বেছে নিলেন পালসিট ও পাল্লারোড এলাকার বাসিন্দারা। পোস্টকার্ডে তাঁদের দাবির কথা উল্লেখ করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদর দপ্তরে চিঠি পাঠালেন সোমবার। দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ভোটের প্রাক্কালে গ্রামবাসীদের এহেন পন্থা রাজনৈতিক মহলে যথেষ্ট সড়া ফেলেছে।

দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়ের পালসিট মোড় ও পাল্লারোড মোড় এলাকাটি অত্যন্ত দুর্ঘটনা-প্রবণ হয়ে উঠেছে বলে দাবি স্থানীয়দের। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সম্প্রতি ওই এলাকায় ঘটে যাওয়া ভয়াবহ দুর্ঘটনায় ৬ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। তবুও ফ্লাইওভার বা আণ্ডারপাস তৈরির বিষয়ে জাতীয সড়ক কর্তৃপক্ষ কিংবা নেতা-নেত্রী থেকে শুরু করে মন্ত্রী-সাংসদেরা কোনও প্রকার শব্দ ব্যায় করেননি। ঘটনায় ক্ষিপ্ত আমজনতা এবার তাদের দাবি তুলে ধরতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদর দপ্তরগুলিতে চিঠি পাঠালেন এদিন।

- Advertisement -

পাল্লারোড এলাকার বাসিন্দা সন্দীপন সরকার জানিয়েছেন, প্রায়শই পালসিট ও পাল্লারোড মোড়ে দুর্ঘটনা ঘটে চলেছে। দুর্ঘটনায় মৃত্যুও হচ্ছে পথচারীদের। বহু বছর ধরে এই দুটি মোড়ে ফ্লাইওভার নয়তো আন্ডারপাস তৈরির দাবি জানানো হচ্ছে। ভোট আসলেই রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা এবিষয়ে শুধু প্রতিশ্রুতিই দিয়ে যান। কিন্তু ভোট মিটে গেলে তারা প্রতিশ্রুতির কথাই ভুলে যান। তাই পোষ্টকার্ডে দাবির বিষয়টি লিখে গণ চিঠি বিভিন্ন পার্টির সদর দপ্তরে পাঠানো হল নেতা-নেত্রীদের টনক নড়াতে। চিঠি পাওয়ার পর রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা কতটা সাড়া দেন সেটাই এখন দেখার বিষয় বলে মন্তব্য স্থানীয়দের।

এই বিষয়ে পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া বলেন, ‘দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকায় ফ্লাইওভার বা আন্ডারপাস তৈরির বিষয়ে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু হাইওয়ে কর্তৃপক্ষ এবিষয়ে কোনও উদ্যোগ নেয়নি।’

মেমারি বিধানসভার তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মধুসূদন ভট্টাচার্য বলেন, ‘এই দাবি দীর্ঘদিনের। কিন্তু হাইওয়ে কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে উদাসীন। তাই দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে।’