সদ্যোজাত কন্যাসন্তানকে নিয়ে উধাও প্রসূতি, চাঞ্চল্য রায়গঞ্জ মেডিকেলে

618

রায়গঞ্জ: প্রসূতি বিভাগ থেকে উধাও সদ্যোজাত শিশু ও মা। এই ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের গাইনি বিভাগে। প্রসূতির বিরুদ্ধে রায়গঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সোমবার দুপুর দুটো নাগাদ রায়গঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়। এক রোগিনী হঠাৎ করে নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়ায় হাসপাতালে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারি অধ্যক্ষ প্রিয়ঙ্কর রায় ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছেন। বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

চলতি মাসের ২৪ তারিখ প্রসববেদনা নিয়ে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন সুভাষগঞ্জের বাসিন্দা আরতী সিংহ (১৯)। ২৫ তারিখ সকালে তিনি কন্যাসন্তান প্রসব করেন। মা ও শিশু দুজনেই সুস্থ ছিল। এরপর এদিন সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ গাইনি বিভাগ থেকে আচমকাই উধাও হয়ে যায় শিশুসহ মা। ওই প্রসূতির স্বামী সুজন সিংহ এসে দেখেন, পোস্ট নেটাল (প্রসূতি বিভাগের) বেডে তাঁর স্ত্রী ও কন্যাসন্তান নেই। এরপর হুলুস্থূলু কান্ড বেঁধে যায়। পেশায় ভ্যানচালক সুজন সিংহ বলেন, স্ত্রী-সন্তানকে দেখতে এসে দেখি বেডে নেই তারা। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দ্বারস্থ হই। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে মা-শিশু কোথায় চলে গেল, তা নিয়ে ধন্দে হাসপাতালের কর্মীরাও।

- Advertisement -

হাসপাতালে নিরাপত্তারক্ষী থাকা সত্ত্বেওও কীভাবে হাসপাতাল চত্বর থেকে ওই রোগী বেরিয়ে গেলেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের আধিকারিক কৃষ্ণ সেন বলেন, হাসপাতাল থেকে দুজন নিখোঁজ হয়ে গিয়েছেন। রায়গঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন অ্যাম্বুলেন্স চালকদের সঙ্গে কথা বলেছে। এদিকে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকরা। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, কোনও প্রসূতির ছুটি হলে তাকে যাবতীয় কাগজপত্র দেওয়ার পাশাপাশি নবজাতক শিশুর জন্ম শংসাপত্র (বার্থ সার্টিফিকেট) দেওয়া হয়। সেই সমস্ত কাগজ ও তিনি নিয়ে যাননি। রায়গঞ্জ থানার এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, নিখোঁজের অভিযোগ জমা পড়েছে। তদন্ত চলছে।