মুখ্যমন্ত্রীকে ‘হরিদাস’ বলে কটাক্ষ মীনাক্ষীর

164

রাজগঞ্জ: শনিবার রাজগঞ্জে সংযুক্ত মোর্চার এক পথসভায় মুখ্যমন্ত্রীকে ‘হরিদাস’ বলে কটাক্ষ করেন গণতান্ত্রিক যুব ফেডারেশনের রাজ্য সভানেত্রী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়। রাজগঞ্জের কালীনগরে পথসভায় তিনি বলেন, ‘রাজ্যে এখন সাড়ে পাঁচ লক্ষ শূন্য পদ রয়েছে। কিন্তু দিদিমণি বলছেন করোনা ঠিক হয়ে গেলে রাজ্যের আড়াই লক্ষ শূন্যপদ তুলে নেবেন। ওই সরকারি পদগুলি কি নিজের বাপের জমিদারির টাকায় চলে? জনগণের টাকায় ওই কর্মচারীদের বেতন দেওয়া হয়। তাহলে উনি কোন হরিদাস যে আড়াই লক্ষ শূন্যপদ তুলে নেবেন।‘ এদিন তিনি প্রতিশ্রুতি দেন, সংযুক্ত মোর্চা রাজ্যে ক্ষমতায় এলে এক বছরের মধ্যে ওই সাড়ে ৫ লক্ষ শূন্যপদ পূরণ করা হবে।

এবার বিধানসভা নির্বাচনে হটস্পট নন্দীগ্রামে হাইভোল্টেজ বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী ও তৃণমূলের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মাঝেও বিশেষ নজর কেড়েছেন সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়। নন্দীগ্রামের লড়াই শেষে বাকি ছয় দফার ভোটে তরুণ তুর্কি মীনাক্ষীকেই প্রচারে নামিয়েছে বাম শিবির। এদিন রাজগঞ্জের সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী রতনকুমার রায়ের সমর্থনে পথসভা করেন তিনি। তাঁর বক্তব্যে, কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও রাজ্যের তৃণমূল সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন। মীনাক্ষী জানান, কৃষকদের জমির অধিকার, ফসলের ন্যায্যমূল্য, বেকারদের চাকরি নিয়ে বিজেপি বা তৃণমূলের কোনও ইস্যু নেই। কিন্তু সংযুক্ত মোর্চা ওই ইস্যু নিয়ে লড়ছে। তৃণমূল জিতলে নাকি তপশিলি মহিলাদের মাসে ১০০০ ও সাধারণ মহিলাদের ৫০০ টাকা করে দেবে। তাঁর প্রশ্ন এই টাকায় কি কোনও সংসার চলে? অন্যদিকে বিজেপি বলছে তারা মহিলাদের চাকরিতে ৩০ সংরক্ষণ দেবে। সংবিধানে তপশিলি জাতি, উপজাতি ও ওবিসিদের সংরক্ষণের কথা রয়েছে। ঠিকঠাকভাবে ওই সংরক্ষণ হিসেবে চাকরি দিলে হয়ে যায় বলে দাবি তাঁর। এদিন পথসভার পর বেলাকোবা কলেজ মোড় থেকে মিছিলে অংশগ্রহণ করেন মীনাক্ষী। তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন সিপিএমের জলপাইগুড়ি জেলা সম্পাদক সলিল আচার্য, রাজগঞ্জের প্রার্থী রতনকুমার রায় সহ ব্লকের সংগঠনের নেতারা।

- Advertisement -