কোভিড টেস্টের ভয়ে স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বহির্বিভাগে রোগীর সংখ্যা তলানিতে

206

চ্যাংরাবান্ধা: স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা করাতে এলেই করাতে হবে কোভিড টেস্ট। প্রশাসনের তরফে বৈঠকে এমনটাই সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই অনুযায়ী বহির্বিভাগে চিকিৎসা করাতে এলেও আগে কোভিড টেস্ট করিয়ে নিতে হবে। সেই টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তবেই তিনি বহির্বিভাগে চিকিৎসা করানোর জন্য লাইনে দাঁড়াতে পারবেন। তবে করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এলে সেইমতো চিকিৎসা চলবে। এদিকে এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই বহির্বিভাগে চিকিৎসা করাতে আসা মানুষের ভিড় কমছে। কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ ব্লকে গত কয়েকদিনে এই সংখ্যা একেবারে তলানিতে এসে ঠেকেছে। এমনকি চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পৌঁছোনোর পরও কোভিড টেস্টের ভয়েও অনেকে সেখান থেকে চলে যাচ্ছেন বলে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর।

জানা গিয়েছে, ব্লকের প্রতিটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রেই গত কয়েকদিনে বহির্বিভাগের চিত্রটা প্রায় একইরকম। প্রতি বছর এই মরসুমে চ্যাংরাবান্ধা ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে দৈনিক ৩৫০-৪০০ জন মানুষ বহির্বিভাগে চিকিৎসা পরিষেবা নিয়ে থাকেন। করোনা পরিস্থিতিতে সেটা অর্ধেকে নেমে গিয়েছিল। প্রশাসনের তরফে প্রতিটি রোগীর কোভিড টেস্টের কথা ছড়িয়ে পড়ায় বহির্বিভাগে রোগীর সংখ্যা ৪০-৫০ জনে এসে দাঁড়িয়েছে। এই বিষয়ে মেখলিগঞ্জ ব্লকের ভারপ্রাপ্ত বিএমওএইচ ডাঃ উত্তমকুমার রায় জানান, বর্তমানে বহির্বিভাগে রোগীর সংখ্যা কমেছে। কোভিড টেস্টের কথা শুনে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এসেও কেউ ঘুরে চলে যাচ্ছেন বলে তিনি জানতে পেরেছেন।

- Advertisement -