করোনাকালে পূর্বপুরুষদের স্মৃতি আঁকড়ে পুজো চক্রবর্তী বাড়িতে

326

মেটেলি: ১৯৫১ সালে ক্ষিতীশচন্দ্র চক্রবর্তী ও তাঁর ছেলে অনিলকুমার চক্রবর্তী মেটেলি বাজারের বাসভবনে দুর্গাপুজো করেন। তারপর কেটে গিয়েছে কয়েক দশক। পূর্বপুরুষদের শুরু করা সেই পুজো পুনরায় শুরু করেছে উত্তরসূরিরা। এবার তারা তৃতীয় বর্ষের পুজো করছে।

বাড়ির পুজো হলেও মানা হবে যাবতীয় সরকারি স্বাস্থ্যবিধি। স্বাধীন হওয়ার আগেই চক্রবর্তী বাড়ির পুজো শুরু হয়। কয়েকবার পুজোর পর নানান কারণে সেই পুজো কয়েক দশক বন্ধ থাকে। পূর্বপুরুষদের শুরু করা সেই পুজো ২০১৮ সাল থেকে ফের নতুন করে শুরু করে চক্রবর্তী পরিবারের দুই ছেলে পিনাকী চক্রবর্তী ও সৌমেন চক্রবর্তী।

- Advertisement -

বাড়ির পুজো হলেও এতে সামিল হন পাড়ার লোকজনও। এবছর করোনা আবহে যাবতীয় সরকারি বিধি মেনে পুজোর আয়োজন চলছে। বাড়িতে তৈরি করা হয়েছে খোলা মণ্ডপ। পিনাকী চক্রবর্তী বলেন, আমার বাপ-ঠাকুরদা এই পুজোর সূচনা করেন। মাঝে কয়েক দশক পুজো বন্ধ ছিল। তিন বছর ধরে আমরা নতুন করে এই পুজো করে আসছি।

তিনি আরও বলেন, এবছর করোনা আবহে পুজোর জন্য যাবতীয় সরকারি বিধি মেনেই পুজো করা হবে। থাকবে থার্মাল স্ক্রিনিং সহ মাস্ক ও সানিটাইজারের ব্যবস্থা। পুজো মণ্ডপে দর্শনার্থীদের ভিড় করতে দেওয়া হবে না। প্রথমার দিনই পুজোর জন্য ঘট স্থাপন করা হয়েছে। তিনি জানান, সাধ্যমতো এই পুজো তাঁরা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন।