বল বিকৃতির দ্বিতীয় ঢেউয়ে উত্তাল ডনের দেশ

সিডনি : প্রায় ঠান্ডাঘরে চলে যাওয়া স্যান্ডপেপার বিতর্কে ফের উত্তাল অজি ক্রিকেট।

দিন কয়েক আগে বিতর্ক উসকে দিয়েছিলেন তিন অভিযুক্তের অন্যতম ক্যামেরন ব্যানক্রফট। দাবি করেছিলেন, বল বিকৃতির বিষয়টি জানত আরও অনেকেই। বিশেষত, যাঁরা এরফলে উপকৃত হয়েছে সেই বোলাররা। মূলত আঙুল তোলেন মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স, জোস হ্যাজেলউডদের দিকেই। ব্যানক্রফটের নতুন যে দাবির প্রেক্ষিতে বল বিকৃতি কেলেঙ্কারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে রীতিমতো অস্বস্তিতে স্যার ডনের দেশ।

- Advertisement -

এ প্রসঙ্গে মাইকেল ক্লার্ক এদিন বলেন, বোলিং করার সময় বল হাতে নিলেই ব্যাপারটা পরিষ্কার হতে বাধ্য। আপনি যদি পেন দিয়ে আমার ব্যাটের যেকোনো জায়গায় সামান্য আঁচড়ও কাটেন, তাহলেও ব্যাটিং করার সময়, আমার নজরে সেটা আসবেই। আর এটা তো বল বিকৃতির মতো ঘটনা। বোলারদের নজরে আসবেই। কারণ, সর্বোচ্চ পর্যায়ে যারা খেলে থাকে, তারা তাদের প্রতিটি ক্রীড়া সরঞ্জাম সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকে। বলের আকার বদলাল, আর বোলারদের বুঝতে পারেনি এটা হতে পারে না। এখানেই থেমে থাকেননি ক্লার্ক। বলেন, ব্যানক্রফটের কথায় অবাক হওয়ার কিছু নেই। যারা ক্রিকেট খেলেছে বা এই খেলাটা সম্পর্কে অবগত, তারা জানেন সর্বোচ্চ পর্যায়ে বল কতটা গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ ক্রিকেটের। তাই বল বিকৃতির বিষয়টি বাকিদের নজরে পড়েনি এটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। আমি মোটেই অবাক হব না, যদি তিনজনের বেশি (ওয়ার্নার, স্মিথ, ব্যানক্রফট) আরও অনেকে এটা জেনে থাকে।

ঘরে-বাইরে সাঁড়াশি চাপে নড়েচড়ে বসেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ইতিমধ্যেই স্যান্ডপেপার গেটের পুরোনো ফাইল নতুন করে খোলার ইঙ্গিত দিয়েছে। তবে বছর তিনেক আগে তদন্তে গাফিলতির কথা মানতে নারাজ অজি বোর্ড। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম শীর্ষ আধিকারিক বেন অলিভারের দাবি, ওইসময় পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হয়েছে। দলের প্রত্যেকেই দারুণ কাজ করেছে। বিতর্কে ধাক্কা খাওয়া ভাবমূর্তি অনেকটাই ফিরে আসে। সেই জায়গা থেকে বলতে পারি, প্রয়োজনে ফের তদন্ত করা হবে। যদি কারও কাছে নতুন কোনও তথ্য থাকে, তারা ইনটিগ্রিটি ইউনিটকে তা জানান। ইতিমধ্যেই নতুন তথ্য জানতে ব্যানক্রফটের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ওর উত্তরের অপেক্ষা আছি আমরা।