গাজলের পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু

233

গাজোল: আবারও এক পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হল গাজোলে। শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনে বাড়ি ফিরতে গিয়ে ট্রেন থেকে পড়ে মৃত্যু হয় ওই পরিযায়ী শ্রমিকের। জেলা কংগ্রেস সভাপতি তথা বিধায়ক মোস্তাক আলমের তদারকিতে মৃতদেহ বাড়িতে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হলেও মৃতদেহে পচন ধরায় তা আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়নি। শেষ পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট এলাকাতেই মৃতদেহের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। বাড়ির ছেলেকে শেষ দেখা দেখতে না পেয়ে স্বাভাবিকভাবেই শোকার্ত পরিবারের সদস্যরা। পরিবারের লোকজনদের সমবেদনা জানাতে, ওই মৃত শ্রমিকের বাড়িতে যান মোস্তাক আলমসহ গাজোল ব্লক কংগ্রেস নেতৃত্ব।

ঘটনা গাজোলের আলাল অঞ্চলের মহাকাল বোনা গ্রামের। করোনা পরিস্থিতির জেরে কাজ হারিয়ে মহারাষ্ট্র থেকে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনে বাড়ি ফিরছিলেন শ্রমিক নাসির আলি (২৭)। তিনি গত ১৮ জুন মহারাষ্ট্রের সাতারা জেলা এলাকায় ট্রেন থেকে পড়ে মারা যান। তাঁর পকেটে থাকা নথিপত্র দেখে তাঁর বাড়িতে যোগাযোগ করে ঘটনা জানায় মহারাষ্ট্র প্রশাসন। কিন্তু বাড়ির আর্থিক অবস্থা এতটাই খারাপ যে, ওখান থেকে মৃতদেহ ফিরিয়ে আনা সম্ভব ছিল না। বিষয়টি জানতে পেরে ব্লক কংগ্রেস নেতৃত্ব যোগাযোগ করেন জেলা কংগ্রেস সভাপতি তথা বিধায়ক মোস্তাক আলমের সঙ্গে।

- Advertisement -

এরপর মোস্তাক আলম মৃতদেহ ফিরিয়ে আনতে উদ্যোগী হন। যোগাযোগ করেন পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং মহারাষ্ট্র সরকারের সঙ্গে। কিন্তু মৃতদেহে পচন ধরে যাওয়ায় তা ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়নি। এরপর জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোস্তাক আলম ওই শ্রমিকের বাড়িতে গিয়ে বাড়িতে গিয়ে তাঁর পরিবারকে সমবেদনা জানান। আর্থিক সাহায্যও করেন।

মোস্তাক আলম বলেন, মহারাষ্ট্র থেকে বাড়ি ফেরার পথে ট্রেন থেকে পড়ে গিয়ে মারা যান নাসির আলি। কিন্তু তাঁর পরিবারের আর্থিক অবস্থা এতটাই খারাপ যে মৃতদেহ ফিরিয়ে আনার মত টাকা পয়সা ছিল না। জানতে পেরে মৃতদেহটি ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আমি উদ্যোগ গ্রহণ করি। কিন্তু জানা যায়, মৃতদেহে এতটাই পচন ধরে ছিল যে তা আর আনা সম্ভব ছিল। তাই সমস্ত রীতি মেনে ওখানেই শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। আমরা পরিবারকে সমবেদনা জানাবার জন্য এসেছিলাম। সঙ্গে সামান্য কিছু আর্থিক সাহায্য করেছি। আগামিতেও সব রকম সাহায্য করা হবে।