কর্মীর অভাবে বন্ধ ভোটপট্টির মিলন মন্দির পাঠাগার

466

উৎপল সেন, হেলাপাকড়ি: কর্মীর অভাবে বন্ধ হয়ে রয়েছে ভোটপাট্টির মিলন মন্দির পাঠাগার। পাঠ্যপুস্তক সহ পাঠাগারের বইয়ের সংখ্যা প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার। আর পাঠকের সংখ্যাও প্রায় চার শতাধিক। যার মধ্যে অধিকাংশই ছাত্রছাত্রী। কর্মীর অভাবে লকডাউনের একমাস আগেই পাঠাগারটি বন্ধ হয়ে যায়।

২০১৬ সালের ৩১ মার্চ গ্রন্থাগারিক স্বপনকুমার দাস অবসর নিয়েছেন। তারপর প্রায় চার বছর কেটে গেলেও নতুন গ্রন্থাগারিক নিয়োগ হয়নি। সহকর্মী সুষেন দেবনাথ একাই এতদিন অফিসের অন্য কাজের সঙ্গে গ্রন্থাগারিকের দায়িত্ব সামলাতেন। কিন্তু গত ফেব্রুয়ারি মাসের ২৮ তারিখ তিনিও অবসর নিয়েছেন। ফলে আর কোনও কর্মী না থাকায় পাঠাগারের গেটে তালা পড়ে। তাই কর্মী নিয়োগ করে পাঠাগার খোলার দাবি জানিয়েছেন পাঠকরা।

- Advertisement -

পাঠাগার পরিচালন কমিটির সদস্য আশিসকুমার বসাক বলেন, ‘গ্রন্থাগারিক স্বপন কুমার দাসের অবসরের পরও এতদিন সহকর্মী সুষেন দেবনাথের তত্বাবধানে গ্রন্থাগারটি চলছিল। পাঠকের অভাবে অন্যান্য গ্রন্থাগারগুলি যখন বন্ধ হওয়ার মুখে, তখনও এই পাঠাগারের পাঠক সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে এটি বন্ধ হয়ে থাকায় বইপ্রেমীদের সমস্যায় পড়তে হয়েছে। সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছে ছাত্র-ছাত্রীরা। কারণ এলাকার অনেক দুস্থ পরিবারের ছেলে-মেয়ের পড়াশোনা নির্ভর করে এখানকার পাঠ্যপুস্তকের উপর। তাই কর্মী নিয়োগ করে দ্রুত পাঠাগারটি খোলার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’ জলপাইগুড়ি জেলা গ্রন্থাগার আধিকারিক সৈকত গোস্বামী এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘আপাতত সব গ্রন্থাগারই বন্ধ রয়েছে। পরবর্তীতে সব খুলে গেলে দু-একজন করে কর্মী দিয়ে বন্ধ হয়ে থাকা গ্রন্থাগারগুলিও চালু করা হবে।’