তেহরান, ১৪ ফেব্রুয়ারিঃ ইরানের এলিট রেভলিউশনারি গার্ডের বাসে আত্মঘাতী হামলায় মৃত্যু হল ২০ জনের। গুরুতর আহত হয়েছেন আরও ২০ জন। যেখানে বিস্ফোরণ ঘটেছে, সেই এলাকাটি সিসতান-বালুচিস্তান প্রদেশের অন্তর্গত। কাছেই পাকিস্তান সীমান্ত। ওই প্রদেশের বাসিন্দারা ইরানের থেকে স্বাধীনতা চায়। ফলে প্রায়শই ইরানি সেনার সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে বালুচ বাসিন্দাদের। রেভলিউশনারি গার্ডের তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সেনারা বাসে করে সীমান্ত থেকে থেকে ফিরছিলেন সেই সময় একটি বিস্ফোরক ভরতি গাড়ি বাসের পাশে এসে বিস্ফোরণ ঘটায়। জানা গিয়েছে, আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে জয়েশ-অল-আদল নামে এক সংগঠন। ২০১২ সালে ওই গোষ্ঠীটি তৈরি হয়। ইরানে ওই গোষ্ঠীকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ বলে কালো তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। আত্মঘাতী বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করে বিবৃতিও দিয়েছে ওই সংগঠন। বুধবারই পোল্যান্ডে আমেরিকার ডাকে ইরানের ওপর বাধানিষেধ আরোপ করা নিয়ে আলোচনায় বসেন ৬০ টি দেশের প্রতিনিধিরা। জঙ্গি হানার সঙ্গে ওই সম্মেলনের যোগ আছে বলে দাবি করেছে ইরান সরকার। ইরানের বিদেশমন্ত্রী মহম্মদ জাভেদ জারিফ বলেন, যেদিন ওয়ারশয় ওই সম্মেলন হচ্ছে, সেদিনই ইরান জঙ্গি হানার শিকার হয়েছে। এটা কাকতালীয় হতে পারে না।