ওদলাবাড়ি : আমেরিকার অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে ডক্টরেট পেলেন ওদলাবাড়ির যুবক অরিন্দম মিত্র (মিমো)।সুদূর আমেরিকা থেকে মেধাবী মিমোর এই সাফল্যের কথা ওদলাবাড়িতে পৌঁছাতেই তাঁর পরিবার পরিজন, বন্ধু মহল থেকে শুরু করে ওদলাবাড়ি উচ্চতর মাধ্যমিক বিদ্যালয় সর্বত্র খুশির আমেজ।

আগাগোড়া বাংলা মাধ্যমের ছাত্র অরিন্দম ওদলাবাড়ি উচ্চতর  বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় ৯০% নম্বর নিয়ে উত্তীর্ণ হওয়ার পর কলকাতার একটি বিদ্যালয় থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষাতেও ভালো ফল করেন। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে তিনি ভরতি হন। ২০১২ সালে স্নাতক হওয়ার পর একটি বহুজাতিক সংস্থায় কিছুদিন চাকরি করে গবেষণার জন্য আমেরিকার অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে চলে যান মিমো। ডঃ চিত্ত বড়ালের অধীনে ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং বিষয়ে ২০১৪ সাল থেকে গবেষণা শুরু করেন মিমো।

তাঁর গবেষনার বিষয়বস্তু সম্বন্ধে মিমো সংক্ষেপে জানিয়েছেন, এখনও বিজ্ঞানের বহু প্রশ্নের উত্তর কোনো ওয়েবসাইটে পাওয়া যায় না। গুগল বা উইকিপিডিয়া এক্ষেত্রে কয়েকটি ওয়েব পেজ- এর লিংক দিয়ে শুধুমাত্র সেই লিংকগুলোতে উত্তর থাকার সম্ভাবনার কথা জানায়। মাল্টি স্টেপ অ্যারিস সিস্টেমে প্রশ্ন উত্তরের এই কাজটি আরও আধুনিকভাবে পরবর্তী উচ্চতর পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার কাজেই দিনরাত এক করে গত পাঁচ বছর ধরে  গবেষণায় মগ্ন ছিল মিমো।

গবেষনার সূত্রেই বিশ্বখ্যাত অ্যালেন ইনস্টিটিউট অফ আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সের সঙ্গেও কাজের অভিজ্ঞতা গবেষক মিমোর চিন্তাভাবনায় প্রভাব ফেলে। গত চার বছরে তাঁর গবেষণালব্ধ তথ্য তুলে ধরে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের কনফারেন্সের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য বিশ্বের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত পর্যন্ত ছুটে বেড়াতে হয়েছে মিমোকে। লিসবন, বার্লিন, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি, হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জ হয়ে গত জুলাই মাসে ফ্লোরেন্স শহরে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক কনফারেন্সগুলিতে তাঁর গবেষণ বিশেষ স্বীকৃতি আদায় করে নিয়েছে।

‘অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য অ্যাডভান্সমেন্ট অফ আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স’-এর সম্মেলন প্রতিবছর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হয়। এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনগুলিতে প্রতিবছর দুনিয়াজুড়ে হাজার হাজার গবেষক যোগ দিলেও মাত্র ২০% গবেষণা আন্তর্জাতিক মহলের স্বীকৃতি লাভ করে।গত পাঁচ বছরে এ ধরনের পাঁচটি সম্মেলন থেকে সাফল্য ছিনিয়ে নিলেও তার এই কৃতিত্ব নিয়ে মুখ খুলতে নারাজ মিমো।

গবেষণা শেষে অ্যারিজোনার পাট চুকিয়ে ভারতীয় সময় সোমবার দুপুরে ওয়াশিংটন শহরে পৌঁছে গিয়েছে অরিন্দম। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর মাইক্রোসফট রিসার্চ-এর মুখ্য দপ্তরে ‘কোর সায়েন্টিস্ট’ পদে নতুন করে কর্মজীবন শুরু হবে তাঁর।মাঝের এই ক’টা দিন একটু বিশ্রাম।ডক্টরেট পাওয়ার পর ওদলাবাড়ির বাড়িতে ফোন করে পরিবারের সকলের সাথে দীর্ঘ সময় কথা বলেছেন মিমো। মেন্টর ডঃ চিত্ত বড়ালের কথাও বারবার তাঁর বক্তব্যে উঠে এসেছে।

মিমোর এই সাফল্যে খুশির হাওয়া ওদলাবাড়ি উচ্চতর মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও।বিদ্যালয়ের টিচার ইন চার্জ নিরুমোহন রায় বলেন, ‘গ্রামীণ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে মিমো অসাধারণ নজির সৃষ্টি করেছে। তার এই সাফল্যে বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক শিক্ষিকা সহ সকলেই গর্বিত। ভবিষ্যৎ জীবনের প্রতিটি ধাপেও মিমো এইভাবেই সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে যাক, এই কামনা করি।  আগামীদিনে বাড়িতে ফিরে এলে মিমোকে বিদ্যালয় থেকে  সংবর্ধনা দেওয়া হবে।’

 

ছবি- মেন্টর ডঃ চিত্ত বড়ালের অভিনন্দন অরিন্দম মিত্রকে। -সংগৃহীত চিত্র

তথ্য- অনুপ সাহা