বর্ধমান পৌরসভার উপ-প্রশাসক পদে আইনুল হকের নিযুক্তির প্রতিবাদে সরব মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরীও

201

বর্ধমান, ১৯ অগাস্টঃ নবনিযুক্ত বর্ধমান পৌরসভার উপ-প্রশাসক আইনুল হককে উদ্দেশ্য করে নজিরবিহীন আক্রমন করলেন রাজ্যের গ্রন্থাগার মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী। বৃহস্পতিবার বর্ধমানে একটি কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে তিনি আইনুল হকের উপ-প্রশাসক পদে নিযুক্ত হওয়ার তীব্র বিরোধীতা করেন। একইসঙ্গে একাধিক কড়া মন্তব্যও করেছেন। সেই বক্তব্যের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়তেই শোরগোল পড়ে যায়।

মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী তাঁর ভিডিও বক্তব্যে বলেন, আইনুল হক সিপিএম থেকে এই দলে এসেছেন। সিপিএম ক্ষমতায় থাকার সময়ে উনি অত্যাচার অবিচার করেছেন। ওঁনাকে মেনে নিতে তৃণমূলের পুরোনো কর্মীদের আপত্তি আছে। যারা তৃণমূলের সঙ্গে আগে থেকেই আছেন, তাঁদের এবং তাঁদের পরিবারের উপর অনেক অত্যাচার করেছেন। উনার গায়ে সিপিএমের বদরক্ত আছে। এইরকম লোক দলের মাথায় চেপে বসলে কর্মীদের পক্ষে হজম করা সত্যি মুশকিল। সিদ্দিকুল্লাহ আরও চৌধুরী জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি দলের নেত্রী ও অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। আইনুল হককে নিয়ে ক্ষুব্ধ দলের কর্মীদের সঙ্গেও তাঁর কথা হয়েছে বলে মন্ত্রী মন্তব্য করেছেন।

- Advertisement -

বাম আমলে বর্ধমান পৌরসভার দণ্ডমুণ্ডের কর্তা ছিলেন সিপিএম নেতা আইনুল হক। তৃণমূল কংগ্রেসের যাবতীয় আন্দোলন তখন ছিল তাঁরই বিরুদ্ধে। রাজ্যে পালাবদলের কয়েকবছর পর সিপিএম থেকে বহিষ্কৃত হয়ে আইনুল হক প্রথমে বিজেপিতে নাম লেখান। পরে, বিধানসভা ভোটের আগে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেন। প্রায় ৩ বছর পর বর্ধমান পৌরসভার জন্য গঠিত হয় প্রশাসক মণ্ডলী। সেই প্রশাসক মণ্ডলীতে উপ-প্রশাসক হিসাবে আইনুল হকের নাম সামনে আসতেই গত মঙ্গলবার থেকে শহর বর্ধমানের তৃণমূল শিবিরে ক্ষোভ-বিক্ষোভ চলছে। বৃস্পতিবারও বর্ধমান পৌরসভায় তৃণমূল কর্মীদের সেই ক্ষোভ-বিক্ষোভ অব্যহত ছিল।

এমন পরিস্থিতিতে আইনুল হককে নিয়ে করা রাজ্যের মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরীর বক্তব্যে আরও উজ্জীবিত বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কংগ্রেস শিবির। এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলার মুখপত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন, মন্ত্রী কী বলেছেন তা আমার জানা নেই। তবে, দলের শীর্ষ নেতৃত্ব যা নির্দেশ দেবেন, সেটাই দলের সবাইকে মানতে হবে।