শিক্ষকদের মানবিকতা ও মাতৃভক্তির পাঠ দিলেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

165

বর্ধমান: ‘দুয়ারে শিক্ষক’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে শিক্ষকদের মানবিকতা ও মাতৃভক্তির পাঠ দিলেন রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। শুক্রবার পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ার রবীন্দ্র পরিষদে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে মন্ত্রী জানান, করোনা অতিমারিতে শিক্ষকরা ঘরে বসেই প্রতি মাসের বেতন পেয়েছেন। তাঁরা নিজের পরিবারের জন্য নিয়মিত বাজার করেছেন। কিন্তু তিনি লক্ষ্য করেছেন, অতিমারিতে দুঃস্থদের পাশে সেভাবে দাঁড়াননি। পাশাপাশি শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে তাঁর বক্তব্য, শিক্ষকরা মাটির দুর্গাকে প্রণাম করেন, পুষ্পাঞ্জলি দেন। কিন্তু নিজের বাড়িতে মাকে অভুক্ত রাখেন। বাড়িতে বসে থাকা ‘জ্যান্ত মা’ কেন অভুক্ত থাকবেন? কেন অনাদরে থাকবেন? মন্ত্রীর দাবি, নিজের মাকে অনাদরে রাখার সংখ্যা কম নয়। তাই দেবী দুর্গাকে প্রণাম করুন। তবে গর্ভধারিণী মাকে অভুক্ত রাখবেন না। মন্ত্রী জানান, মাধ্যমিক ও প্রাথমিক মিলিয়ে জেলায় ২০ হাজারের বেশি শিক্ষক রয়েছেন। প্রত্যেক শিক্ষক যদি দুটি করে পোশাক দুঃস্থ শিশুদের কিনে দেন, তাহলে অনেক শিশু পুজোয় নতুন জামা পরতে পারবে। শিক্ষকদের প্রতি মন্ত্রীর এমন মন্তব্য শিক্ষকমহলে যেমন শোরগোল ফেলেছে, তেমনই তৈরি হয়েছে বিতর্ক।

জেলা শিক্ষক সমিতির সম্পাদক বিশ্বনাথ সাহা জানান, করোনা অতিমারির সময়ে কাটোয়ার বিধায়কের উদ্যোগে সেখানকার শিক্ষকরা সর্বতভাবে দুঃস্থদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। অন্যদিকে নিখিল বঙ্গ শিক্ষক সমিতির সদস্য কৌশিক দে’র বক্তব্য, করোনাকালে শিক্ষকরা মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে নিজেদের সাধ্যমতো অর্থ দিয়েছেন। বহু শিক্ষক ব্যক্তিগত উদ্যোগেও মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তারপরও মন্ত্রী তাঁর মন্তব্যের মধ্যদিয়ে গোটা শিক্ষক সমাজকে ছোট করলেন।

- Advertisement -