বারবিশা, ২৬ ফেব্রুয়ারিঃ নাবালিকাকে ধর্ষণ ও শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগে প্রতিবেশী এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করল বারবিশা আউটপোস্টের পুলিশ। মঙ্গলবার ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায় বারবিশায়। ধৃতকে বুধবার আলিপুরদুয়ার আদালতে পেশ করা হয়। ঘটনার তদন্ত চলছে।

এই বিষয়ে নাবালিকার বাবা বলেন, ‘গতকাল মেয়ে বাড়ির বাইরে ফাঁকা জায়গায় খেলতে গিয়েছিল। এরপর আর বাড়ি ফেরেনি। মেয়ের খোঁজে প্রতিবেশীদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করি। প্রতিবেশী এক ব্যক্তির বাড়ি থেকে মেয়ের চপ্পল উদ্ধার হয়। সন্দেহ হওয়ায় পুলিশে লিখিত অভিযোগ করি।’ পুলিশ ঘটনার তদন্তে নামে। পুলিশি জেরায় ওই ব্যক্তি যৌন নির্যাতনের পর প্রমাণ লোপাটের জন্য নাবালিকাকে শ্বাসরোধ করে খুনের কথা স্বীকার করে। রায়ডাক নদীর চড়ে মাটি খুঁড়ে নাবালিকার দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এদিকে অভিযুক্তের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছেন নাবালিকার পরিবার ও এলাকাবাসী। এই বিষয়ে আলিপুরদুয়ার জেলা পুলিশ সুপারিনটেন্ডেন্ট অমিতাভ মাইতি জানান, অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জেরায় ধৃত ব্যক্তি ধর্ষণ ও খুনের কথা স্বীকার করেছে। নাবালিকার মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কোচবিহার সরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কুমারগ্রাম থানার আইসি বাসুদেব সরকার জানান, নাবালিকাকে ধর্ষণ ও খুনের দায়ে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। ধৃতকে আজ ৫ দিনের পুলিশি হেপাজতের আবেদন করে আলিপুরদুয়ার আদালতে পেশ করা হয়। ঘটনার তদন্ত চলছে।