রুপো নয়, সোনায় চোখ মীরাবাইয়ের

নয়াদিল্লি : বর্তমান ফর্ম অনুযায়ী পারফর্ম করলে অলিম্পিক থেকে খালি হাতে ফিরতে হবে না মীরাবাই চানুকে। কিন্তু পদকের রং সোনালী করাই এখন এই ভারতীয় ভারোত্তলকের একমাত্র লক্ষ্য।

করোনার জন্য টোকিও গেমস থেকে নাম তুলে নিয়েছে উত্তর কোরিয়া। এমন অবস্থায় ৪৯ কেজি বিভাগে চানুর পথের কাঁটা একমাত্র চিন। প্রতিবেশী দেশের দুই ভারোত্তলক এই বিভাগে চানুর থেকে এগিয়ে। কিন্তু অলিম্পিকে চিনের একজনই অংশ নিতে পারবে। ফলে সব ঠিক থাকলে অন্তত রুপো পাবেন চানু। যদিও তাঁর নজর সোনার পদকের ওপর। এ প্রসঙ্গে এই মণিপুরি তারকা বলেছেন, আমি রুপো জিততে চাই না। আমার লক্ষ্য সোনা জয়।

- Advertisement -

চিনা প্রতিপক্ষদের উদ্দেশ্যে চানুর চ্যালেঞ্জ, আমি ওদের থেকে বেশি ওজন তুলব। ওরা মনে করে ওরাই শ্রেষ্ঠ, কেউ ওদের থেকে বেশি ওজন তুলতে পারবে না। আমি ওদের এই ভুল ভাঙব। আমি ওদের ছাপিয়ে যেতে চাই। সম্প্রতি এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১১৯ কেজি তুলে বিশ্বরেকর্ড করেছেন। তবে ১৬ মাস পর প্রতিযোগিতামূলক ইভেন্টে নেমে স্ন্যাচে মাত্র ৮৬ কেজি তোলেন। ফলে মোট ওজন তোলার ক্ষেত্রে চিনা প্রতিপক্ষের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েন চানু।

এই ইভেন্টে স্ন্যাচে ৯৬ কেজি তুলে বিশ্বরেকর্ড করেছেন চিনের হৌ জিহুই। ক্লিন অ্যান্ড জার্কেও হৌ (১১৭ কেজি) চানুর থেকে খুব একটা পিছিয়ে নেই। তবে চানুর কথায়, কাঁধের চোটের জন্য স্ন্যাচে ওজন তোলার সময় কিছুটা সমস্যা হয়। তবে ক্লিন অ্যান্ড জার্কে আমার আত্মবিশ্বাস সবসময় তুঙ্গে থাকে। চিনাদের সঙ্গে পাল্লা দেওয়া প্রসঙ্গে বললেন, আমাকে স্ন্যাচে আরও ভালো করতে হবে। এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে আমি ৯২ কেজি তোলার পরিকল্পনা নিয়েছিলাম। তবে তা বাস্তবে হয়নি।

করোনার জন্য কোনও প্রতিযোগিতায় নামতে পারেননি চানু। এই বিরতি নিয়ে তাঁর মূল্যায়ণ, দীর্ঘদিন প্রতিযোগিতার বাইরে থাকায় আমার আত্মবিশ্বাস টাল খেয়েছিল। কী হবে, কেমন পারফর্ম করব- মনের মধ্যে এই ধরনের দ্বিধা জন্ম নেয়। আমেরিকায় চিকিৎসা করিয়ে কাঁধের চোটের উন্নতি হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।