গেমসে নিজের সঙ্গে লড়াই মীরাবাইয়ের

টোকিও : চিনের এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন হউ ঝিহুই, ইন্দোনেশিয়ার আইষা উইন্ডি কান্তিকা বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেলাক্রুজ জর্ডন এলিজাবেথ। টোকিও অলিম্পিকে পদক জয়ের জন্য এদের টেক্কা দিতে হবে ভারতীয় ভারোত্তোলক মীরাবাই চানু সাইখোমকে।

কিন্তু বাস্তবে মীরাবাইয়ে প্রতিপক্ষ তিনি নিজেই। এবার টোকিও অলিম্পিকে ভারতীয়দের মধ্যে তিনিই পদকের সবচেয়ে কাছে রয়েছেন। নিজের স্বাভাবিক পারফরমেন্স ধরে রাখতে পারলে সোনা না হোক, রুপো জয় নিশ্চিত। কিন্তু স্বাভাবিক পারফরমেন্স দেওয়াই তাঁর কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ ২০১৬ রিও অলিম্পিকেও তিনি পদকের দাবিদার ছিলেন। কিন্তু সেবার স্ন্যাচে তিন সুযোগের মধ্যে একবার বৈধভাবে ওজন তুলতে পারেন। আর নিজের শক্তি ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ফাউল করেন প্রতিবারই।

- Advertisement -

মীরাবাই যে পদকের যোগ্য ছিলেন, পরের বছরই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জিতে প্রমাণ করেছিলেন। কিন্তু রিও নিয়ে আপশোস যায়নি ৪৯ কেজি ক্যাটেগরির এই ভারোত্তলকের। সেই ভুল থেকেই শিক্ষা নিয়েছেন। তাঁর কথায়, রিওর পর আমি অনেক পরিণত হয়েছি। নিজের টেকনিক, বিশেষত স্ন্যাচ নিয়ে খেটেছি। অনুশীলনে কিছু বিষয় পরিবর্তন করেছি। স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্কের মধ্যে ভারসাম্য আনার চেষ্টা করেছি।

নিয়ম অনুযায়ী, অলিম্পিকে ভারোত্তলনে কোনও দেশ থেকে একজনই নামতে পারবেন। ফলে মীরাবাইয়ের ক্যাটেগরিতে ২০১৯ এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে রুপোজয়ী চিনের জিয়াং হুইহুয়া টোকিওয় নেই। ফলে মোট ওজন তোলার ক্ষেত্রে চিনেরই ঝিহুই ছাড়া কেউই ভারতীয় তারকার ধারেকাছে নেই। স্ন্যাচে (৮৬ কেজি) অনেকেই তাঁকে পরীক্ষার মুখে ফেললেও ক্লিন অ্যান্ড জার্ক (১১৯ কেজি) বাকিদের থেকে এগিয়ে রাখছে মণিপুরের এই ভারোত্তলককে।