কোভিড হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ করোনা আক্রান্তের মৃত্যু রাজগঞ্জে

154

রাজগঞ্জ: জলপাইগুড়ি বিশ্ববাংলা কোভিড হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ করোনা আক্রান্তের মৃত্যু হল রাজগঞ্জ গ্রামীণ হাসপাতালে। বছর ৬২-র মৃত ব্যক্তি মেটেলি ব্লকের বাসিন্দা ছিলেন। এই ঘটনায় জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের উপর দোষ চাপিয়েছে মৃতের পরিবার। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বুধবার ওই কোভিড হাসপাতাল থেকে এক রোগী নিখোঁজ হয়েছিলেন। যদিও তাঁকে কিছুক্ষণের মধ্যেই পাওয়া যায়। পরেরদিন ফের একই ঘটনা ঘটায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে।

সূত্রের খবর, ওই ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হওয়ায় বুধবার জলপাইগুড়ি বিশ্ববাংলা কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে ওই রোগী হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ হয়ে যান। এদিন সন্ধ্যায় জলপাইগুড়ি শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে রাজগঞ্জের ফাটাপুকুর এলাকায় স্থানীয়রা ওই ব্যক্তিকে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন। একসময় তিনি অসুস্থ হয়ে লুটিয়ে পড়েন। তাঁকে রাজগঞ্জ গ্রামীণ হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে রাজগঞ্জ গ্রামীণ হাসপাতালে পৌঁছোয় মৃতের পরিবার। পরে মৃতদেহ দাহ করার জন্য সাহুডাঙ্গির বৈতরণী শ্মশান ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়।

- Advertisement -

মৃতের ভাই বলেন, ‘জলপাইগুড়ি বিশ্ববাংলা কোভিড হাসপাতালে নিরাপত্তা-ব্যবস্থা ঠিকঠাক নেই। পরিষেবাও ভালো না। মাঝেমাঝেই রোগী নিখোঁজ হয়ে যাচ্ছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কঠোর হলে আমার দাদার এভাবে মৃত্যু হত না। দাদার মৃত্যুর জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দায়ী।’

রাজগঞ্জের ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ শুভদীপ সরকার জানান, বৃহস্পতিবার রাতে কেউ বা কারা ওই ব্যক্তিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করেন। ওই ব্যক্তির লালা পরীক্ষা করে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। রাতেই ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। সকালে মৃতের পরিবার এসে দেহ শনাক্ত করেন। তবে ওই ব্যক্তি জলপাইগুড়ি বিশ্ববাংলা কোভিড হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ হওয়া করোনা রোগীই কিনা, তা তিনি জানা নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।