কুরুক্ষেত্র, ১৫ জানুয়ারিঃ ফের নির্ভয়াকাণ্ডের ছায়া এবার হরিয়ানায়। বছর ১৫ এর এক কিশোরী গত মঙ্গলবার থেকেই নিখোঁজ ছিল। টিউশন পড়ে আর ফেরেনি বাড়ি। এরপর শনিবার হরিয়ানার জিন্দ থেকে ওই কিশোরীর ক্ষতবিক্ষত অর্ধনগ্ন দেহ উদ্ধার হয়েছে।

রোহতকের পিজিআইএমএস-এর ফরেন্সিক বিভাগের প্রধান এস কে দত্তারবল বলেছেন, ‘কিশোরীর দেহে মোট ১৯টি জায়গায় ক্ষতচিহ্ন ছিল। মুখ, মাথা, বুক ও হাতেই বেশি ক্ষত দেখা গিয়েছে। যকৃৎ এবং ফুসফুস মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কেউ ওর বুকের উপর বসে পড়ার ফলেই এটা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। গোপনাঙ্গেও কিছু ঢুকিয়ে দেওয়ার ফলে মারাত্মক ক্ষত দেখা যায়। মনে হচ্ছে তিন-চারজন মিলে ওর উপর অত্যাচার চালিয়েছে। এমনকী ওই কিশোরীকে জলেও ফেলে দেওয়া হয়েছিল বলেও জানা গিয়েছে ময়নাতদন্তে।’

এই ঘটনায় ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। তবে এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে এক সন্দেহভাজনের কোঁজ চলছে। এই ঘটনার তদন্তের জন্য দু’টি বিশেষ দল গঠন করা হয়েছে।

মৃত কিশোরীর বাবা বলেন, মেয়ের অপরাধীদের শাস্তি চাই। প্রশাসন যদি ঠিকমতো কাজ করলে এই ধরনের ঘটনা ঘটত না।