হুজুর সাহেবের মেলায় মিলল ছাড়পত্র, উচ্ছ্বসিত হলদিবাড়িবাসী

694

অমিতকুমার রায়, হলদিবাড়ি: দীর্ঘ টালবাহানা পর অবশেষে শর্ত সাপেক্ষে উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী হলদিবাড়ির হুজুর সাহেবের ৭৭তম ইসালে সওয়াবের আয়োজন করার ছাড়পত্র মিলল। জেলা প্রশাসনের তরফে এমন বার্তা পাওয়ার পরেই উচ্ছ্বসিত হুজুর সাহেবের একরামিঞা ইসালে সওয়াব কমিটি তথা উত্তরবঙ্গের মুসলিম ধর্মপ্রাণ মানুষরা। সেই অনুযায়ী কমিটির তরফে তড়িঘড়ি প্রস্তুতি শুরু করে দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই হুজুরের মাজার প্রাঙ্গণে কমিটির তরফে প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়। সেখানে কোভিড পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে ইসালে সওয়াব আয়োজনের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

প্রশাসন সূত্রে খবর, হুজুরের প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে বার্ষিক অনুষ্ঠান ইসালে সওয়াব আয়োজনের ছাড়পত্র দেওয়া হলেও দোকান পসার বসিয়ে মেলার আয়োজনের কোন প্রকার সম্মতি দেওয়া হয়নি। মেলার আয়োজন ছড়ায় বার্ষিক ইসালে সওয়াব করার প্রয়োজনীয় ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে মাত্র। এমন খবরে হতাশ হলদিবাড়ি তথা উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তের ব্যবসায়ীরা। তবে এই বিষয়ে অনুমতির জন্য সোমবার উত্তরকন্যায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে একরামিঞা ইসালে সওয়াব কমিটির সদস্যরা।

- Advertisement -

করোনা পরিস্থিতি পুরোপুরি স্বাভাবিক না হওয়ায় এবছরের হুজুর সাহেবের বার্ষিক ইসালে সওয়াব নিয়ে গড়া থেকেই প্রশ্ন চিহ্ন দেখা দিয়েছে। প্রয়োজনীয় অনুমতির জন্য একরামিঞা ইসালে সওয়াব কমিটির কর্মকর্তারা একাধিকবার প্রশাসন সহ শাসকদলের জেলা নেতৃত্বের দ্বারস্থ হয়েও কোন প্রকার সবুজ সংকেত আদায় করতে পারছিল না। তবে বিশ্বস্ত সূত্রে খবর, ঐতিহ্যবাহী হুজুরের মেলার আয়োজনের প্রয়োজনীয় অনুমতির জন্য নবান্নের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।সেখান থেকে প্রাপ্ত সবুজ সংকেতের ওপর নির্ভর করছে উত্তরবঙ্গের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী এই মেলার এবছরের আয়োজন। কমিটির সদস্যদের দাবি নবান্ন সূত্রে সবুজ সংকেত মেলায় জেলা প্রশাসনের তরফে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবছর বাংলা ক্যালেন্ডারের ফাল্গুন মাসের ৫ ও ৬ তারিখ হুজুর সাহেবের বার্ষিক ইসালে সওয়াব উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী মেলা হুজুর সাহেবের মেলা অনুষ্ঠিত হয়।সেই অনুযায়ী এবছর আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের ১৮ ও ১৯ তারিখ এটি অনুষ্ঠিত হবে। এদিন জেলা প্রশাসনের তরফে ছাড়পত্র মিলতেই ৭৭তম হুজুর সাহেবের একরামিয়া ইসালে সওয়াবের আয়োজন শুরু করল কমিটির কর্মকর্তারা। এই উপলক্ষ্যে রবিবার হুজুরের মাজার প্রাঙ্গণে একরামিয়া ইসালে সওয়াব কমিটির সভার আয়োজন করা হয়। উপস্থিত ছিলেন একরামিয়া ইসালে সওয়াব কমিটির সম্পাদক লুৎফর রহমান, সভাপতি সামসুল আরফিন, কোষাধক্ষ নূরনবীউল ইসলাম, কার্যকরী সভাপতি জালাল উদ্দিন সরকার প্রমুখ।

কমিটির সম্পাদক লুৎফর রহমান জানান, ইসালে সওয়াবের আয়োজন নিয়ে অনিশ্চয়তা কেটে গেছে। সেই অনুযায়ী এদিনের বৈঠকে প্রস্তুতি শুরু করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। অন্য বছরের মতো প্রচারের ব্যবস্থা, হুজুরের মাজারের পরিকাঠামো সংস্কার, অতিথিদের নিমন্ত্রণ করার বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এবছর তবারকের পরিমাণ কয়েকগুণ বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।