রায়গঞ্জ, ২১ অক্টোবরঃ রায়গঞ্জে আইনশৃঙ্খলার অবনতির জন্য পুলিশ সুপারকে স্মারকলিপি দিলেন রায়গঞ্জের বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্ত। সোমবার কয়েক দফা দাবি সহ স্মারকলিপি দেওয়া হয়। এদিন বিধায়ক বলেন, রায়গঞ্জে চূড়ান্ত আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে। দীর্ঘ প্রায় দু’মাস যাবৎ রায়গঞ্জ সহ জেলার বিভিন্ন প্রান্তে খুন, মাদকাসক্তি উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেয়েছে। একের পর এক ঘটনা ঘটলেও পুলিশ নির্বিকার। তিনি আরও বলেন, গতকাল রায়গঞ্জ থানা থেকে মাত্র ২০০ মিটার দূরত্বে যেভাবে বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করে কুমারডাঙ্গি এলাকার এক ব্যবসায়ীকে গুলি করা হল এবং তার পিতাকে নিগ্রহ করা হল তা অভাবনীয় তো বটেই সঙ্গে দুশ্চিন্তারও। এই ধরনের আক্রমণে রায়গঞ্জ সহ সমস্ত এলাকার মানুষ ভীত ও আতঙ্কিত এবং চূড়ান্ত নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। পাশাপাশি তিনি এও বলেন, রায়গঞ্জে যুবকদের মধ্যে ড্রাগের নেশা ও মাদকাসক্তি দিনকেদিন ক্রমবর্ধমান। এদিন উপস্থিত ছিলেন রায়গঞ্জের বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্ত সহ কংগ্রেসের জেলা নেতৃত্ব।

অন্যদিকে, এদিন রায়গঞ্জ শহরের দেবীনগরের ২৫ নম্বর, ২৬ নম্বর, ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলারের নেতৃত্বে মহিলারা রায়গঞ্জ শহর পরিক্রমা করে রায়গঞ্জ থানায় ডেপুটেশন দেন। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন রায়গঞ্জ পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান অরিন্দম সরকার, তৃণমূলের তিন কাউন্সিলার অসীম অধিকারী, প্রসেনজিৎ সাহা এবং অভিজিৎ সাহা। এদিন সন্ধ্যায় রায়গঞ্জ থানা ক্যাম্পাসের সামনে রায়গঞ্জ পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান অরিন্দম সরকার বলেন, রায়গঞ্জ শহরে ড্রাগের নেশা বেড়ে যাওয়ায় যুব সমাজ ধ্বংসের মুখে যাচ্ছে। অবিলম্বে ড্রাগের ডিলার থেকে শুরু করে ক্রেতা ও বিক্রেতা প্রত্যেককে গ্রেফতার করা হোক। এদিন রায়গঞ্জ থানার আইসিকে ড্রাগ ডিলারদের অবিলম্বে গ্রেফতারের আর্জি জানানো হয়।