লিগের আশা কার্যত শেষ মহমেডানের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : মঙ্গলবার ইনভেস্টরের সঙ্গে চুক্তি হওয়ার পর বসন্তের ফুরফুরে হাওয়া ছিল মহমেডান শিবিরে। একদিন পরেই পঞ্জাব এফসির সঙ্গে ড্র করে ফের বাস্তবের মাটিতে নামল আই লিগে কলকাতার একমাত্র প্রতিনিধি। একইসঙ্গে লিগ জয়ে দৌড় থেকে একপ্রকার ছিটকে গেলেন শংকরলাল চক্রবর্তীর ছেলেরা।

চ্যাম্পিয়নশিপ রাউন্ডের প্রথম ম্যাচে হারের পর বুধবার যুবভারতীতে জিততে মরিয়া ছিল দুপক্ষই। একাধিক সহজ সুযোগ নষ্টের পর ৩৪ মিনিটে এগিয়ে যায় পঞ্জাব। সাদা-কালো ডিফেন্সের ভুল কাজে লাগিয়ে গোল করেন চেঞ্চো গেলৎসেন। ৪৬ মিনিটে দ্বিতীয় গোলটিও আসে তাঁর পা থেকেই। ২ গোলে পিছিয়ে পড়ার পর খান তিনেক পরিবর্তন করেন শংকরলাল। এরপরেই ৭ মিনিটে তিন গোল করে ম্যাচে ফেরে মহমেডান।

- Advertisement -

৫৯ মিনিটে ফয়জল আলির গোলে ব্যবধান কমায় মহমেডান। এর মিনিট পাঁচেক পর সমতায় ফেরে পেড্রো মানজির গোলে। এই গোলের রেশ কাটার আগেই আজহারউদ্দিন মল্লিকের গোল এগিয়ে দেয় মহমেডানকে। তবে ৮৮ মিনিটে আশিস ঝা-এর গোলে মহমেডানের তিন পয়েন্টের স্বপ্ন ভেঙে যায়। একইসঙ্গে একপ্রকার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৌড় থেকে ছিটকে দিল শংকরলালদের। ১২ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়নশিপ রাউন্ড টেবিলে সবার শেষে তাঁরা।

পরপর দুম্যাচ মিলিয়ে সাত গোল খেয়ে আক্ষরিক অর্থেই সাদা-কালো দেখাচ্ছে মহমেডান ডিফেন্সকে। কোচ শংকরলাল অবশ্য গোল খাওয়ার থেকে কামব্যাককে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। তিনি বলেন, গোল খেয়েছি সেটা বাস্তব। তবে এদিন ছেলেরা দুগোল খেয়ে লড়াই ছাড়েনি। এটা ইতিবাচক। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন ভাঙা প্রসঙ্গে বললেন, আমি দায়িত্বে আসার সময় দল অবনমনের লড়াইয়ে ছিল। আর ছেলেদের ওপর কোনও নির্দিষ্ট লক্ষ্য চাপিয়ে দিইনি। একটা-একটা করে ম্যাচ ধরে আমরা খেলছি।

বহুদিন পর চোখ টানলেন প্রাক্তন মেরিনার্স আজহার। একসময়ে ডার্বিতে গোল করে সাড়া ফেলে দেওয়া এই তরুণ এখন মহমেডানের প্রথম একাদশেও অনিয়মিত। এদিন গোল করার পাশাপাশি করালেন। পঞ্জাবের বক্সের মধ্যে যেভাবে বল সাজিয়ে দিয়েছিলেন, তা থেকে অনায়াসে গোল করেন পেড্রো। মিনিট দশেক মাঠে থেকে নজর কাড়লেন ইস্টবেঙ্গলের প্রাক্তনী সঞ্জু প্রধানও। বিপক্ষের তিনজনকে কাটিয়ে বল বাড়িয়েছিলেন আশিসের জন্য। যা থেকে তৃতীয় গোলটি করে পঞ্জাব।

অন্যদিকে, নেপালে ত্রিদেশীয় প্রতিযোগিতার জন্য জামাল ভুইয়াঁকে ছাড়তে অনুরোধ জানিয়ে বাংলাদেশের ফুটবল ফেডারেশন মহমেডানকে চিঠি দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসবেন ক্লাবকর্তারা। তবে শেষ পর্যন্ত তাঁকে ছাড়তে হলেও তেমন সমস্যা হবে না বলে জানিয়েছেন শংকরলাল।