লিগ ফাইনালের আগে টিকিটের হাহাকার

কলকাতা : গেটের ঠিক সামনেটায় বড়সড় জটলা। প্রত্যেকের মুখে বিরক্তির ছাপ স্পষ্ট।

রেড রোডের ধার থেকে এক খাকিউর্দিধারী কৌতহল চেপে না রাখতে পেরে এগিয়ে এলেন। কিসের এত ভিড়? জিজ্ঞাসা করতেই বছর ছাব্বিশের এক মুখের উত্তর, টিকিটের। কিন্তু পাচ্ছি কই!

- Advertisement -

মঙ্গলবারের মধ্যাহ্নে মহমেডান ক্লাবতাঁবুর সামনে এই ছবিটাই তুলে ধরছিল ময়দানের চেনা ফুটবল উন্মাদনাকে। কাল বাদে পরশু কলকাতা লিগের ফাইনাল। জিতলেই ১৯৮১-র ঐতিহাসিক মুহূর্ত স্পর্শ করবে সাদা-কালো ব্রিগেড। তার আগে ম্যাচের টিকিট নিয়ে হাহাকার তুঙ্গে সাদা-কালোর ঘরে ও বাইরে।

ক্লাব গেটের বাইরে সমর্থকদের বিরক্তির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ল কর্তাদের ক্ষোভ। ম্যাচের দুদিন আগে কোচ-ফুটবলারদের নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন ডেকেছিলেন মহমেডান কর্তারা। সেই মঞ্চে লিগের ফাইনালের অব্যবস্থা নিয়ে আইএফএ-কে কাঠগড়ায় তুললেন ক্লাবের সহ সভাপতি মহম্মদ কামারুদ্দিন। বললেন, কলকাতা লিগের ফাইনালের আগে হাতে একমাস সময় পেয়েছিল। এত সময় পেয়ে আইএফএ কী করল, বুঝতে পারছি না। দুদিন পর ম্যাচ। এখনও আইএফএ টিকিট পাঠায়নি।

কামারুদ্দিনের ক্ষোভ, আমরা জিজ্ঞাসা করায় বলছে, এখনও নাকি টিকিট স্ট্যাম্পিং হয়নি। আমাদের লাখ লাখ সাপোর্টার। মালদা, মুর্শিদাবাদ আরও কতদূর থেকে তারা আসছে। কিন্তু খালি হাতে ফিরে যাচ্ছে। এমনকি আইএফএ-র তরফে মহমেডানের জন্য বরাদ্দ ভিআইপি টিকিট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন। পরে অবশ্য আইএফএ সচিবের উদ্যোগে সেই সমস্যার সমাধান মিলল। অনলাইনের পাশাপাশি বিকেল ৪টে থেকে ক্লাবতাঁবু থেকে শুরু হল অফলাইন টিকিট বিক্রিও।

মহমেডান কোচ আন্দ্রে চেরনিশভের কথায় আবার সমর্থকদের মুখে হাসি ফোটানোর বার্তা। বলেন, দলের সামনে ৪০ বছর পর লিগ চ্যাম্পিয়নশিপ জেতার সুযোগ রয়েছে। সমর্থকরা আমাদের জয় দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন। ফাইনালের জন্য আমরা তৈরি। ক্লাব অফিশিয়াল এবং সাপোর্টারদের জন্য আমরা লিগ জিততে চাই। ডুরান্ড, ফুটসলের পর তাই আর ভুল করতে নারাজ মহমেডান শিবির।