অমিল ট্যাবের টাকা, বিধায়কের দারস্থ দুই স্কুলের অভিভাবকরা

100

আসানসোল: রাজ্যের তরফে দেওয়া ট্যাব কেনার টাকা এখনও হাতে পায়নি রেল শহর চিত্তরঞ্জনের দুই স্কুলের কয়েকশো পড়ুয়া। ঘটনায় এবার বারাবনির বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হলেন পড়ুয়া সহ অভিভাবকরা। টাকা না পাওয়ার কথা জানানোর পাশাপাশি লিখিতভাবে একটি আবেদনও করেন তারা। আবেদনের ভিত্তিতে বিধায়ক বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন।

জানা গিয়েছে রেল শহর চিত্তরঞ্জনের ডিভি বয়েজ ও ডিভি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের পড়ুয়ারা ট্যাবের টাকা থেকে এখনও বঞ্চিত। যদিও স্কুলগুলি রাজ্য সরকারের মধ্যশিক্ষা পর্ষদের অধীনে রয়েছে। পর্ষদের পাঠ্যক্রম মেনে স্কুলে পড়াশোনা হয়। তবে, স্কুল দুটির যাবতীয় পরিচালনার ভার কেন্দ্রীয় সংস্থা চিত্তরঞ্জন রেল ইঞ্জিন কারখানা কর্তৃপক্ষের। তার জন্য রাজ্য সরকারের সহায়তা অমিল বলেই স্পষ্ট করেছে পড়ুয়ারা। স্কুল সূত্রে খবর, চলতি বছরে ওই দুটি স্কুল থেকে কয়েকশো পড়ুয়া উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় বসতে চলেছে। আবেদনকারী পড়ুয়ারা জানায়, তাদের অভিভাবকেরা কেউই কোনও রকম সরকারি চাকরি করেন না। পারিবারিক আর্থিক অবস্থাও সেইরকম ভালো নয়।

- Advertisement -

অভিভাবক বিপ্লব চৌধুরি, তরুন মিত্র, সুশান্ত চট্টোপাধ্যায়রা বলেন, ‘ছেলেমেয়েদের সঙ্গে নিয়ে বিধায়কের সঙ্গে দেখা করেছি। আমাদের যে ট্যাব কেনার সামর্থ্য নেই তাও বিধায়ককে জানিয়েছি। অনলাইনে পড়াশোনা করার ক্ষেত্রে ছেলে-মেয়েদের চরম অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে।’ অভিভাবকদের দাবি, এই অবস্থায় বিধায়ক যদি উদ্যোগ নিয়ে তাদের ছেলেমেয়েদের জন্য ট্যাব কেনার সরকারি টাকার ব্যবস্থা করে দেন তাহলে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে সুবিধা হবে। সেই আবেদনের প্রতিলিপি সালানপুর বিডিও আদিতি বসুর কাছেও জমা দিয়েছেন তাঁরা।

এবিষয়ে বিধায়ক বিধান উপাধ্যায় বলেন, ‘বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি। নির্দিষ্ট জায়গায় বিষয়টি জানাব। দেখি কি করতে পারি।’