পুকুরে ডুব দিয়ে হাতরালেই মিলছে টাকা-গয়না!

3322

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: পুকুরে ডুব দিয়ে হাতরালেই মিলছে ৫০০, ২০০০ টাকার নোট, কয়েন ও গয়না!এমন খবর ছড়িয়ে পড়তেই শুক্রবার তোলপাড় পড়ে যায় পূর্ব বর্ধমানের মেমারি-২ ব্লকের কুচুট পঞ্চায়েতে বড়মশাগোড়িয়া গ্রামে। টাকা-গয়না পাবার জন্য সকাল থেকে প্রচুর মানুষ ওই পুকুরে নেমে পড়েন। খবর পেয়ে বিকালে মেমারি থানার পুলিশ ওই পুকুর পাড়ে পৌঁছে সব লোকজনকে হটিয়ে দেয়। এরপর পুলিশই পুকুরে লোক নামিয়ে জাল ফেলে খোঁজ চালায়। তখনও উদ্ধার হয় কিছু টাকা। ঘটনার রহস্য উদ্ধারের জন্য পুলিশ স্থানীয়দের ওই পুকুরে নামায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

কুচুট পঞ্চায়েতের বড়মশাগড়িয়া গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছনে রয়েছে পুকুরটি। এসডিপিও আমিনুল ইসলাম খান বলেন, পুকুরে ডুব দিয়ে হাতরালে টাকা মিলছে এমন খবর গত দু-তিন দিন ধরেই রটছে। শুক্রবার সকাল থেকে ওই পুকুরে প্রচুর লোক নেমে পড়েন। এই খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে যায়। পুকুরে জাল ফেলানো হলে কিছু টাকা পাওয়া যায়। সেগুলি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। পুকুরে কিভাবে টাকা এল খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

- Advertisement -

বড়মশাগড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা সেখ মনসুর আলি, সোলেমান মল্লিক প্রমুখরা জানান, কিছুদিন আগে পুকুর পাড়ের বাসিন্দারা পুকুরে টাকা ভাসতে দেখেন। তারপর থেকেই লোকের মুখে মুখে রটে যায় পুকুরে ডুব দিয়ে হাতরালেই মিলছে ৫০০, ২০০০, ১০০, ৫০ ও ২০ টাকার নোট ও কয়েন। এছাড়াও সোনা ও রূপোর গয়নাও মিলছে বলে অনেকে বলেন। এই খবর রটে যায় গোটা গ্রামজুড়ে। টাকা ও গয়না পাবার জন্য এদিন সকাল থেকে প্রচুর মানুষ ওই পুকুরে নেমে পড়েন।

খবর পেয়ে বিকালে মেমারি থানার পুলিশ পুকুর পাড়ে পৌঁছে সবাইকে পুকুর থেকে তুলে দেয়। এরপর পুলিশ পুকুরে জাল ফেলা করায়। তাতে কিছু টাকা উদ্ধার হলে পুলিশও অবাক হয়ে যায়। সোলেমান মল্লিক বলেন, পুকুরে টাকা কিভাবে এল তার তদন্তের জন্য পুলিশ অফিসাররা পুকুরে কাউকে নামতে নিষেধ করে গিয়েছে। নির্দেশ অমান্য করে কেউ পুকুরে নামলে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে বলেও পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশের লোকজন পুকুরে নজরদারি চালাচ্ছে।