দেশে করোনা ভ্যাকসিনের ২৩ লক্ষেরও বেশি ডোজ নষ্ট

74

নয়াদিল্লি: দেশে ২৩ লক্ষেরও বেশি কোভিড ১৯ ভ্যাকসিনের ডোজ নষ্ট হল। হেল্থ সেক্রেটারি রাজেশ ভূষণ জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে রাজ্যের আলোচনা চলছে। কেন্দ্র এখনও পর্যন্ত দেশের নানা রাজ্যে প্রায় ৭ কোটি করোনা ভ্যাকসিনের ডোজ পাঠিয়েছে। এরমধ্যে উপযুক্ত পরিকল্পনা এবং বাস্তবায়নের অভাবে ৬.৫ শতাংশ ভ্যাকসিন নষ্ট হয়ে গিয়েছে। জানা গিয়েছে, কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের এক ভায়ালে ১০টা ডোজ থাকে। কোভ্যাক্সিনের একটা ভায়ালে থাকে ২০টা ডোজ। কিন্তু একবার এই ভায়াল খুললে মাত্র ৪ ঘণ্টার পরে পুরো ভায়ালটা ব্যবহার করতে হয়। সময় পেরিয়ে গেলে ওই ভায়াল আর ব্যবহারের যোগ্য থাকে না।

লোক নায়ক জয় প্রকাশ নারায়ণ হাসপাতালের মেডিকেল ডিরেক্টর ডাঃ সুরেশ কুমার জানান, এই হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টাই ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ চলছে। কিন্তু তাও ভ্যাকসিন নেওয়ার মতো পর্যাপ্ত পরিমাণে লোক হচ্ছে না। তিনি জানান, যদি সন্ধ্যা ৬টায় একটা ভ্যাকসিনের ভায়াল খোলা হয়, তাহলে দেখা যাচ্ছে যে পরের ৪ ঘণ্টার মধ্যে খুব বেশি ২ জন ভ্যাকসিন নিতে এলেন। ফলে বাকি ডোজ নষ্ট হচ্ছে, তা ফেলে দিতে হচ্ছে।

- Advertisement -

পাবলিক হেল্থ এক্সপার্ট দিলীপ মাবালনকার জানান, প্রত্যেক হাসপাতালের ১ রেডিয়াসের মধ্যে যারা বাস করেন, তাঁদের সকলের মোবাইল নম্বর হাসপাতালে দিয়ে রাখা উচিত। যাতে হাসপাতাল থেকে ফোন করে ওই সব ব্যক্তিদের ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য ডেকে নেওয়া যায়। তিনি আরও জানান, দেশের যে রাজ্যগুলোয় সংক্রমণের হার বেশি, সেখানে তুলনামূলক ভাবে বেশি ভ্যাকসিন পাঠালে তা নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত তেলঙ্গানায় ১৭.৫ শতাংশ, অন্ধ্রপ্রদেশে ১১.৭ শতাংশ এবং উত্তরপ্রদেশে ৯.৪ শতাংশ ভ্যাকসিন নষ্ট হয়েছে।