করোনার কবলে পুরীর জগন্নাথ মন্দির, বন্ধ থাকছে দর্শন

370

ভুবনেশ্বর: করোনার থাবা এবার পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে। চারশোর বেশি সেবাইতের ও মন্দির আধিকারিকের করোনা সংক্রামিতের খবর চাউর হতেই পুরীর জগন্নাথ মন্দির আপাতত সর্বসাধারণের জন্য খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সোমবার, ওড়িশা হাইকোর্টে এক জনস্বার্থ মামলায় আদালতের নোটিশের পর একথা জানাল নবীন পট্টনায়েকের সরকার।

জানা গিয়েছে, অতিমারীর জেরে মন্দির, সাধারণের জন্য খোলা হবে কি না তা জানতে চেয়ে ওড়িশা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়। ওড়িশা সরকারের দাবি, মন্দির চত্বর যথেষ্ট বড় না হওয়ায় এখন সাধারণের প্রবেশাধিকার দিলে সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

- Advertisement -

পাশাপাশি, রাজ্য সরকারের তরফে ওকালতনামা প্রকাশ করে জানানো হয়েছে, এ পর্যন্ত জগন্নাথ মন্দিরের ৩৫১ জন সেবাইত ও ৫৩ জন আধিকারিক কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন। পাশাপাশি সংক্রমণে জেরে মৃত্যু হয়েছে মন্দির নিয়ন্ত্রক কমিটির অন্যতম সদস্য প্রেমানন্দ দাস মহাপাত্রের।

মন্দিরের এক সেবাইত জানিয়েছেন, ‘একাধিক সুয়ার, মহাসুয়ার, দৈতাপতি ও পূজাপান্ডা সংক্রামিত হয়েছেন। প্রতিদিন নিয়মিত মন্দিরের পূজার্চনা যথাবিহিত চললেও এখন মন্দির সর্বসাধারণের জন্য খুলে দিলে সংক্রমণ পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যেতে পারে। পাশাপাশি সংক্রমণে জেরে মৃত্যু হয়েছে মন্দির নিয়ন্ত্রক কমিটির অন্যতম সদস্য প্রেমানন্দ দাস মহাপাত্রের।’

অন্যদিকে, প্রশাসনিক আধিকারিকরা জানিয়েছেন, এই পর্যন্ত শুধুমাত্র পুরী জেলায় কোভিড পজিটিভ রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯,৭০৪। পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের সেবাইতদের সুবিধায় ২৪ ঘণ্টার জৃন্য ভেন্টিলেটর যুক্ত একটি অ্যাম্বুল্যান্সের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এছাড়া, সংক্রামিত সেবাইতরা যাতে বাড়িতে কোয়ারান্টিনে সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন, তা সুনিশ্চিত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্যকর্মীদের দুটি বিশেষ দলকে। মন্দির ও মন্দির সংলগ্ন এলাকায় মাস্ক ব্যবহার আবশ্যিক করেছে জেলা প্রশাসন।