বালুরঘাট, ২৯ জুলাইঃ উত্তরবঙ্গ সংবাদের খবরের জেরে ব্লক প্রশাসন থেকে শুরু করে সাংসদ সকলেই অনাহারে থাকা এক পরিবারের পাশে দাঁড়ালো। সোমবার বালুরঘাট শহর লাগোয়া চকভৃগু গ্রাম পঞ্চায়েতের কুয়ারন সংসদের ধিচুপাড়া এলাকার বাসিন্দা অবিবাহিত তাসিয়া হেড়ে (৩৫) এবং তার বিধবা মা সারা হেড়ে (৬২) এর সাথে বালুরঘাট ব্লক ডেভলপমেন্ট অফিসার অনুজ শিকদার ও পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কল্পনা কিস্কু দেখা করেলেন। চাল, ডাল খাদ্য সামগ্রী দেওয়ার পাশাপাশি, তারা সরকারী ভাতা ও সরকারী প্রকল্পে ঘর দেওয়ার আশ্বাস দিলেন। এছাড়াও বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদারের আপ্ত সহায়ক অজয় সরকার, চকভৃগু পঞ্চায়েতের প্রধান পার্থ দাসসহ অন্যান্যরা গিয়েও খাদ্য সামগ্রী এবং নগদ টাকা প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, তাসিয়া হেড়ের স্বামী লুইস প্রায় বছর তিরিশ আগে মারা যান। এরপর থেকেই পরিবারে প্রবল আর্থিক অনটন শুরু হয়। তার দুই ছেলে সংসারের হাল ধরার চেষ্টা করেন। কিন্তু এই দুই ছেলের বিয়ে হয়ে যাওয়ার পর থেকেই, ছেলেরা আর মা, বোনের খোঁজ রাখে না। ফলে কার্যত মা এবং মেয়ে অর্ধাহারে, অনাহারে দিন কাটাতে শুরু করেন। মায়ের শরীরে যেমন বার্ধক্য নেমে এসেছে, ঠিক তেমনিভাবে মেয়ের শরীরেও অপুষ্টিগত সমস্যা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে মা ও মেয়ে দুজনেই নানাবিধ রোগের শিকার।

এক চিলতে ভাঙ্গা টিনের ঘরে মা ও মেয়ে থাকেন। কর্ম ক্ষমতা না থাকায় তাদের সংসারে আয়ের পথও নেই। মায়ের যেমন বার্ধক্য ভাতা, বিধবা ভাতা ইত্যাদি মেলে নি, তেমনি মেয়েরও সরকারি কোন ভাতা মেলে নি। তারা যেন শুধু ভোটার হয়েই বেঁচে রয়েছেন। কর্ম ক্ষমতা না থাকায় তাদের বাড়ির উঁনুনটি যে কতদিন জ্বলেনি, তা তারা প্রায় ভুলেই গেছেন।প্রতিবেশীদের কাছ থেকে ভিক্ষে করে খাবার জোগাড় এনে তাদের দিন কাটে। আর তাও না জুটলে, তারা শাক-পাতা খেয়েই থাকেন।

এমতাবস্থায় প্রশাসনিক সাহায্য পেয়ে তারা বেজায় খুশি।