একই ছাদনাতলায় দুই মহিলার সঙ্গে মালাবদল করলেন যুবক

482

অনলাইন ডেস্ক: এই ধরণের বিয়ে হয়ত ভূ-ভারতে প্রথম। বর একজন, তবে বউ দুজন! অবিশ্বাস্য ঘটনাটি ভারতেই ঘটেছে। পরিবার ও গ্রামবাসীদের উপস্থিতিতে একই মণ্ডপে একই সঙ্গে দুই মহিলাকে বিয়ে করলেন মধ্যপ্রদেশের এক ব্যক্তি।

মধ্যপ্রদেশের বেতুল জেলা সদর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে ঘোদাডংগ্রি ব্লকের কেরিয়া গ্রামে বিবাহ অনুষ্ঠানটি হয়। ৮ জুলাই বেতুলের বাসিন্দা সন্দীপ উইক একই মণ্ডপে দু’জন মহিলার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এদিকে একই সঙ্গে দু’জন মহিলা বিয়ে করার বিষয়টি জানাজানি হতেই শোরগোল পড়ে যায়। জেলা প্রশাসন ইতিমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।

- Advertisement -

কেরিয়া গ্রামের আদিবাসী যুবক সন্দীপ হোশঙ্গাবাদ জেলা এবং ঘোড়াডংগ্রি ব্লকের কোয়ালারি গ্রামের দুই মহিলাকে বিয়ে করেছেন। ভোপালে পড়াশোনা করার সময় তিনি হোশঙ্গাবাদ জেলা মহিলার সঙ্গে আলাপ হয় তাঁর। এদিকে যুবকের পরিবার কয়লাড়ি গ্রামের একটি মেয়ের সঙ্গে তাঁর বিয়ে ঠিক করেন।

তাঁর পরিবারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে পরিবারে বিরোধের সৃষ্টি হয়। বিষয়টি পঞ্চায়েত স্তর অবধি গড়ায়। পঞ্চায়েতের একটি সভায় তিনটি পরিবারকে ডেকে মীমাংসা করার চেষ্টা করা হয়। সিদ্ধান্ত হয়, উভয় মহিলা যদি যুবকের সঙ্গে থাকতে প্রস্তুত হন, তবে তাঁরা দুজনেই যুবকের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে পারেন। অদ্ভুত এই প্রস্তাবে দুই মহিলাই রাজি হয়ে যান।

এরপর অগ্নিকে সাক্ষী রেখে দুই মহিলার সঙ্গেই সাতপাকে ঘোরেন ওই যুবক। পরিবার, আত্মীয়-পরিজন ও বন্ধু-বান্ধবদের উপস্তিতে ধূমধাম করে বিয়ে সম্পন্ন হয়। জনপদ পঞ্চায়েত ঘোড়াডংগ্রির সহ-সভাপতি এবং বিয়ের সাক্ষী মিশ্রিলাল পারাতে বলেন, যেহেতু তিনটি পরিবারের কোনও আপত্তি ছিল না, তাই বিয়েতে বাধা দেওয়া হয়নি।

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে যে কোনও ধরণের অনুষ্ঠানের আয়োজন করার জন্য প্রশাসনের অনুমতি নেওয়া বাধ্যতামূলক। তবে ঘোড়াডংগ্রির তহসিলদার মনিকা বিশ্বকর্মা বলেন, বিয়ের জন্য এ জাতীয় কোনও অনুমতি চাওয়া হয়নি বা দেওয়াও হয়নি।  তিনি জানান, বিষয়টি তদন্তের জন্য একজন অফিসারকে এলাকায় যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তদন্তের পর কী সিদ্ধান্ত হয়, তা হয়ত পরে জানা যাবে। তবে ইতিহাসে হয়ত এই প্রথম, কোনও বর দু’জন স্ত্রীর সঙ্গে জীবন কাটাবার শপথ নিলেন। এর আগে জানুয়ারী মাসে মধ্যপ্রদেশের ভিন্ড জেলায় দুই বোনকে একইসঙ্গে বিয়ে করেন এক ব্যক্তি।