তবে কী এবার মুকুলের জন্য আদালতে যাবে শুভেন্দু?

202
সংগৃহীত

কলকাতা: ভোট মিটতেই দলবদল করেছেন মুকুল রায়। বিজেপি থেকে তৃণমূলে ফিরলেও  এখনও বিধায়ক পদ ছাড়েননি মুকুল। আর তা নিয়ে তরজা শুরু হয়েছে শুভেন্দু এবং মুকুলের মধ্যে। ইতিমধ্যে দলবদল করার জন্য মুকুল রায়কে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছেন বিজেপির একাধিক সাংসদ। মীরজাফরের সঙ্গে মুকুল রায়কে তুলনা করেছেন সৌমিত্র খাঁ সহ একাধিক সাংসদ। শুধু তাই নয়, বিধায়ক পদ ছেড়ে মুকুল রায়ের বড়বড় কথা বলা উচিৎ বলেও দাবি বিজেপির।

বিজেপির তরফে এই বিষয়ে চাপ দেওয়া হলেও এখনই বিধায়ক পদ ছাড়ছেন না মুকুল রায়। এই বিষয়ে কার্যত প্রকাশ্যে শুভেন্দুকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন তিনি। সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে মুকুল রায় বলেন, ‘এখনই বিধায়ক পদ ছাড়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না।’ বিজেপির টিকিটে কৃষ্ণনগর থেকে এবার বিধায়ক হয়েছেন মুকুল রায়। আর এরপরেই দলবদল করে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে মুকুল রায়। আর দলবদল করতেই বিধায়ক পদ ছাড়ার দাবি উঠেছে বিজেপির তরফে। যদিও সেই দাবি নিজেই খারিজ করে দিয়েছেন মুকুল!

- Advertisement -

অন্যদিকে বিরোধী দলনেতা হিসেবে তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন শুভেন্দু। দীর্ঘ ১০ বছর ধরে তৃণমূল দল ভাঙার খেলা খেলছে বলে দাবি তার। কিন্তু এবার রাজ্যে দলত্যাগ বিরোধী আইন লাগু করানোর জোড় দাবি তুলেছেন তিনি। অন্যদিকে মুকুল রায়কেও বিধায়ক পদ ছাড়ার জন্য হুঁশিয়ারী দিয়েছেন তিনি। তার এই দাবিতে সাঁই দিয়েছেন বিজেওই নেতা দিলীপ ঘোষও। এই বিষয়ে ইতিমধ্যেই স্পিকারের কাছে চিঠি জমা করেছেন তিনি। তাতেও কাজ না হলে আদলতের দ্বারস্থ হবেন বলেও জানিয়েছেন শুভেন্দু।

তৃণমূলে মুকুল ফুটতেই দল ভাঙ্গানোর খেলা শুরু করে দিয়েছেন মুকুল। তিনি ইতিমধ্যে ১০ বিধায়ক সহ দুই সাংসদকে ফোন করেছেন বলে খবর। মোট ৩৫ জন বিজেপি নেতা তৃণমুলে যোগ দেবেন বলেও খবর। যদিও দিলীপ ঘোষের আত্মবিশ্বাস কেউ বিজেপি ছেড়ে যাবেন না।